কাব্য কথায় তনিমা হাজরা (গুচ্ছকবিতায়)

আমি তনিমা হাজরা। লিখি কবিতা, গল্প, অনুগল্প, মুক্তগদ্য, প্রবন্ধ।
(১)

বুঝলাম আমি মেরিট লিষ্টে নেই,
খুঁজলাম আমি পায়ের তলার মাটি,
বাতাস বাতাস বুদবুদ চারিদিক।।

(২)

এমন একাকীত্ব চাই
যেনো মেধার মগ্ন জলে
বোধের পদ্ম ফুটে ওঠে,
এমন নিঃসঙ্গতা চাই,
যেনো হৃদয়ে তাকালে
নিজের প্রতিচ্ছবি নিজে
স্পষ্ট দেখতে পাই,
এমন হা আকার চাই
যেনো তীব্র সাদা পাতা,
জলের দাগ টুকুনও মলিনে আঁকড়ায়।
এমন নিরালা হব এই নিশ্ছিদ্র জনারন্যে
যেনো আমাকে আলাদা করে
শনাক্ত না করা যায়।।

(৩)

যে আমাতে বিষ দেখো,
সে আমার বিষটুকু নিও,
যে আমাতে অমৃত দেখো,
তাকে আমার অমৃত দিলাম,
আমার নিজের ভাগে
শূন্য রাখিলাম।।

(৪)
কবি বলতে আমি ধুতি চাদর পরিহিত সেই মানুষটির কথা ভাবছিলাম,
কবি বলতে সেই শাড়ি ও বিশালাকৃতির গোল টিপ মহিলাটির ব্যক্তিত্ব জরিপ করতে করতে শ্রদ্ধায় নত হচ্ছিলাম,
ঘর মুছতে মুছতে নোংরা হাতে মেয়েটি একটি আধভেজা কোঁচকানো কাগজ দিলো আমার হাতে,
তাতে লেখা ছিল,
“কবে সানকিতে দিবি জোঁকের লাশ,
যেমন আমার রক্ত চুষে খাস গোপনে ,
পেছল ভুঁইয়ে পা টিপে টিপে যাস সাবধানে,
তোর হাসিমুখ পুঁতে রেখেছি গোরস্থানে”
বল্লাম, আমরা ছাতায় বিশ্বাসী, তুমি এতো ভিজে কেন??
ভাত খেতে খেতে থালা ফেলে রেখে উঠে গেছে অভুক্ত বিদ্রুপ।
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!