সাপ্তাহিক ধারাবাহিক উপন্যাসে সুদীপ ঘোষাল (পর্ব – ১১)

তান্ত্রিক পিসেমশাই ও আমরা দুজন

১৭
পিসেমশাই বললেন এসব কথা সব জায়গায় বলতে নেই। আমি বললাম, না বললে আমরা জানব কি করে। পিসেমশাই বললেন, এখন তো জানা সহজ। গুগুল এর দয়া ছাড়া আছে কত বই।পড়তে হবে। শুনতে হবে বেশি।পিসেমশাই বললেন, কালীবীজ’ মন্ত্র, ‘বর্গাদ্যং বর্ণহিসংযুক্তং রতিবিন্দুসমন্বিতম’। এখানে ‘বর্গাদ্য’ শব্দের প্রতীক হচ্ছে ‘ক’, ‘বর্ণহি’ শব্দের ‘র’, ‘রতি’ শব্দে ‘ঈ’ এবং তাতে বিন্দু যুক্ত। সব মিলিয়ে যে প্রতীকী শব্দটি তৈরি হলো তা হচ্ছে ‘ক্রীং’। এইভাবে ‘ভুবনেশ্বরী বীজ’ ‘হ্রীং’, ‘লক্ষ্মীবীজ’ ‘শ্রীং’। যৌগিক বীজও আছে, যেমন ‘তারাবীজ’ ‘হ্রীং স্ত্রীং হূ ফট’ বা ‘দুর্গাবীজ’ ‘ওঁ হ্রীং দূং দুর্গয়ৈ নমঃ’। এই তালিকাটি অতি দীর্ঘ ও এখানে আলোচনা নিষ্প্রয়োজন। এছাড়া এমন কিছু বীজ আছে যেগুলি বিশেষ বিশেষ ক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত।তন্ত্রসাধনে ‘গ্রহণ’-এও সিদ্ধিলাভ সম্ভব। হিন্দু শাস্ত্রে ‘গ্রহণ’ নিয়ে অনেক বিধি-নিষেধ প্রচলিত থাকলেও তান্ত্রিক মতে, তান্ত্রিক সাধনার যাবতীয় সিদ্ধিলাভের উপযুক্ত সময় চন্দ্র বা সূর্যগ্রহণ। সমস্ত তান্ত্রিক তাঁদের মন্ত্র সাধনা এবং গুপ্ত সাধনায় সিদ্ধিলাভের জন্য বছর ভর গ্রহণের অপেক্ষায় থাকেন। তন্ত্র শাস্ত্রে এমন কিছু সাধনার উল্লেখ আছে, যাতে সিদ্ধি লাভ করতে গেলে প্রচুর পরিশ্রম আর কঠোর সাধনা করতে হয়। গ্রহণের সময় সেই সাধনায় বসলে অতি সহজে এবং অল্প সময়ে সাফল্য আসে। এবার জেনে নিন, কী কী সাফল্য পাওয়া যেতে পারে গ্রহণকাল থেকে,চাকরি বা ব্যবসায় উন্নতি: চাইলে গ্রহণের আগে স্নান সেরে পুজোর ঘরে শ্রীযন্ত্র প্রতিষ্ঠা করুন। যন্ত্রের সামনে ঘিয়ের প্রদীপ জ্বালিয়ে দিন। গ্রহণ শুরু হওয়ার পর পঞ্চোপচারে শ্রীযন্ত্রের পুজো করুন। গ্রহণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এই মন্ত্র জপ করতে থাকুন: ‘ওঁ শ্রীং হ্রীং শ্রীং কমলে কমলালয়ে প্রসীদ প্রসীদ শ্রীং হ্রীং শ্রীং কমলভ্যে নমঃ’। বাড়িতে আলাদা করে কোনও ঠাকুরঘর না থাকলে যে কোনও শান্ত, পবিত্র স্থানে যন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে পুজো করতে পারেন।মামলায় জয় লাভ: সম্ভব যদি গ্রহণ শুরুর সময় বগলামুখী যন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে গোটা হলুদ, হলুদ ফুল আর কেশর দিয়ে পুজো করার পর ঘিয়ের প্রদীপ জ্বালিয়ে দেন। একই সঙ্গে পুজোর পর একটি তিনমুখী রুদ্রাক্ষও যন্ত্রের সামনে রাখতে হবে। গ্রহণ যতক্ষণ চলবে ততক্ষণ গোটা হলুদের মালা হাতে নিয়ে এই মন্ত্র জপ করতে হবে: ‘ওঁ হ্রীং বগলামুখী সর্বদুষ্টানাং বাচং মুখং পদং স্তংভয় জিহ্বা কীলয় বুদ্ধি বিনাশায় হ্রীং ওঁ স্বাহা’।তন্ত্রের ভুল ব্যবহার থেকে মুক্তি: পেতে চাইলে গ্রহণের সময় একটি হলুদ, বড়ো, দাগহীন পাতিলেবু নিয়ে নিজের শরীরের ওপর সাতবার বুলিয়ে বা ঘুরিয়ে লেবুটিকে চার টুকরোয় কেটে ফেলুন। এবার সেই চারটি টুকরো চৌরাস্তার চার দিকে ফেলে দিয়ে আসুন।ভূ-লোকে রিদ্ধি-সিদ্ধি লাভের জন্য একটি মহাকুঞ্জিকা রচনা করেন মহাগৌরী পার্বতী। তিনি বলেন, তাঁর যে ভক্ত তাঁকে স্মরণ করে এই মন্ত্র উচ্চারণ করবে, সে এই সংসারে জীবন সুখ-শান্তিতে জীবন অতিবাহিত করবে। ধন-ধান্য এবং সমৃদ্ধির অভাব হবে না। এটি একটি গুপ্তমন্ত্র। এই মন্ত্র পাঠ করলে মারণ, মোহন, বশীকরণ এবং উচ্চাটন ইত্যাদি উদ্দেশের সিদ্ধি হয়।এই মন্ত্রটি হল– ওম এং হ্লীং ক্লীং চামুণ্ডায়ৈ ভিচ্চে। ওম গ্লৌং হুং ক্লীং জুং সঃ জ্বালয় জ্বালয় জ্বল জ্বল প্রজ্বল প্রজ্বল এং হ্লীং ক্লীং চামুণ্ডায়ৈ ভিচ্চে জ্বল হং সং লং ক্ষং ফট্ স্বাহা।নমস্তে রুদ্ররুপিণ্যৈ নমস্তে মধুমর্দিনী। নমঃ কৈটভহারিণ্যৈ নমস্তে মহিষার্দিনী।। নমস্তে শুম্ভহন্ত্রয়ৈ চ নিশুম্ভাসুরঘাতিনী।। জাগতং হি মহাদেবী জপং সিদ্ধং কুরুষ্ব মে। এংকারী সৃষ্টিরুপায়ৈ, হ্রীংকারী প্রতিপালিকা।। ক্লীংকারী কামরুপিণ্যৈ বীজরুপে নমোস্তু তে। চামুণ্ডা চণ্ডঘাতী চ য়ৈকারী বরদায়িনী। ভিচ্চে চাভ্যদা নিত্যং নমস্তে মন্ত্ররুপিণি।। ধাং ধীং ধূং ধূর্জটেঃ পত্নী বাং বীং বুং বাগদীশ্বরী। ক্রাং ক্রীং ক্রুং কালিকা দেবী শাং শীং শুং মে শুভং কুরু।। হুং হুং হুংকাররুপিণ্যৈ জং জং জং জম্ভনাদিনী। ভ্রাং ভ্রীং ভ্রুং ভৈরবী ভদ্রে ভবান্যৈ তে নমো নমঃ।। অং কং চং টং তং পং য়ং শং বীং দুং এং বীং হং ক্ষং ধিজাগ্রং ধিজাগং ত্রোটয় ত্রোটয় দীপ্তং কুরু কুরু স্বাহা।। পাং পীং পূং পার্বতী পূর্ণা খাং খীং খূং খেচরি তথা।। সাং সীং সুং সপ্তশতী দেব্যা মন্ত্রসিদ্ধিং কুরুষ্ব মেব।। ইদং তু কুংজিকায় দেবী হীনাং সপ্তশতীং পেঠত্‍‌। ন তস্য জায়তে সিদ্ধিররণ্যে রোদং যথা।।দুর্গা-মন্ত্রে দূর হবে সব বিপত্তি। রতন বললো, কেউ যদি দুঃখ-দারিদ্র্যে জর্জরিত হয়, তার থেকে মুক্তির মন্ত্র আছে ?বা পারিবারিক কলহ রাতের ঘুম কেড়েছে ?
১৮
পিসেমশাই বললেন, এসব আমার ইইন্টারনেটের দৌলতে জানা জ্ঞান। তা হলে এই দুর্গা মন্ত্রীগুলি জপ করলে সমস্ত বিপত্তি দূর হবে।পরিবারে সুখের বাস হবে।দারিদ্রতা এবং দুঃখ ইত্যাদি দূর করতে, দুর্গে স্মৃতা হরসি ভীতিমশেষজন্তোঃ স্বস্থৈঃ স্মৃতা মতিমতীব শুভাং দদাসি। দারিদ্র্যদুঃখভয়হারিণি কা ত্বদন্যা সর্বোপকারকরণায় সদার্দ্রচিত্তা।।আমি বললাম, কলহ, অশান্তি দূর করে ভালোবাসা বৃদ্ধির জন্য উপায় আছে? তিনি বললেন আছে। ধাং ধীং ধূং ধূর্জটে পত্নী ।বাং বীং বূং বাগধীশ্বরী।।ক্রাং ক্রীং ক্রূং কালিকা দেবী। শাং শীং শূং মেং শুভং কুরু।।সুশীল এবং বিচার-বুদ্ধি সম্পন্ন স্ত্রীর প্রাপ্তির জন্য, ভার্য্যাং মনোরমাং দেহি। মনোবৃত্ত্যনুসারিণীম্।রূপং দেহি জয়ং দেহি যশো দেহি দ্বিষো জহি ।।তারিণি দুর্গসংসার-সাগরস্যাচলোদ্ভবে।রূপং দেহি জয়ং দেহি যশো দেহি দ্বিষো জহি ।।রতন বললো, কোনও বিপত্তির হাত থেকে বাঁচতে? তিনি বললেন, আছে সব আছে। তার মন্ত্র হলো, শূলেন পাহি নো দেবী পাহি খড়গেন চাম্বিকো। ঘণ্টাস্বনেন নঃ পাহি চাপজ্যানিঃস্বনেন চ।।প্রসন্নতা প্রাপ্তির জন্য,প্রণতানাং প্রসীদ ত্বং দেবী।বিশ্ববার্তিহারিণি।ত্রৈলোক্যবাসিনামীড্যে লোকানাং বরদা ভব।।মন্ত্র-গুণে সমস্যা সমাধান কে না জানে, জীবন ইক্যুয়ালটু রকমারি সমস্যা! তা বলে লাগাতার সমস্যায় ভুগতে কার ভালো লাগে! অনেকেই জানেন না, যেমন হরেক কিসিমের সমস্যা আছে তেমনি তার নানা সমাধানও রয়েছে। আর সে সবই হয় মন্ত্রগুণে। তবে মন্ত্রে বিশ্বাস রাখতে হবে। শান্ত মনে জপ করতে হবে। সঙ্গে ধূপ জ্বালাতে পারলে আরও ভালো। তবেই ফল মিলবে। এবং মন শুদ্ধ করতে প্রথমে আরাধ্য দেবতা, গণেশ, গুরুদেব বা মহাদেব-কে স্মরণ করতে হবে।এমনও হয়, দোষ না করেও আপনি দোষের ভাগীদার হয়ে যান। আর অকারণে লাঞ্ছিত হওয়ায় মন অস্থির হয়ে ওঠে। এই অসুবিধে দূর করতে জপ করুন ‘ওঁ হ্রিং ঘৃণীঃ সূর্যায় আদিত্য শ্রী ওঁ হ্রিং জূং সঃ ক্লীং ক্লীং ক্লীং’।কোনও গ্রহের প্রভাবে সব সময় ভয় বা ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কায় মন ভারাক্রান্ত হয়ে থাকে। এমন আশঙ্কাও হয় যে, ঘর থেকে বের হলেই ভয়ানক ক্ষতি হবে। তখন ঈশ্বরকে স্মরণ করে জপ করবেন ‘ওঁ জূং সঃ পালয় পালয় সঃ জূং ওঁ ওঁ ওঁ’।কর্মক্ষেত্রে উন্নতি চাইলে জপ করুন, ‘ওঁ ভূর্ভুবঃ স্বঃ,তত্সবিতুর বরেণ্যং,ভর্গো দেবস্য ধীমহি, ধিয়ো যোনঃ প্রচোদয়াত্‍ ক্লীং ক্লীং ক্লীং’।কোনও অঘটনের সম্মুখীন হয়ে যদি মৃত্যুভয় মনে আসে প্রথমে বলুন, ‘ওঁ হ্রিং জূং সঃ’। তারপর বলুন, ওঁ ত্রম্বকং যজামহে,সুগন্ধিং পুষ্টিবর্ধনম্, উর্বারুকমিব বন্ধনান্, মৃত্যোর্মুক্ষীয় মামৃতাত্’।।মন যখন প্রচণ্ড চঞ্চল হয়ে ওঠে. কিছুতেই বশে থাকে না, তখন শান্ত করতে এই মন্ত্র জপ করুন, ‘ওঁ দ্বৌঃ শান্তিরন্তরিক্ষক্ষং শান্তি পৃথ্বী শান্তিরাপঃ শান্তিরোষধয়ঃ শান্তি, বনস্পতয়ঃ শান্তির্বিশ্বেদেবাঃ শান্তির্ব্রহ্ম শান্তিঃ, সর্ব শান্তিঃ শান্তিরেব শান্তিঃ সা মা শান্তিরেধি,ওঁ শান্তি শান্তি শান্তি’।হতে হতে কোনও হওয়া কাজ মাঝপথে আটকে গেলে জপ করুন, ‘দেহি সৌভাগ্যমারোগ্যং দেহি দেবি পরং সুখম,রূপং দেহি জয়ং দেহি যশো দেহি দ্বিষো জহি’।

ক্রমশ…

Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!