।। ত্রিতাপহারিণী ২০২০।। T3 শারদ সংখ্যায় তুহিন কুমার চন্দ

ব্রহ্মা জানে ঈশ্বর অসুস্থ এখন

ঈশ্বর অসুস্থ এখন
সমুদ্র শাসনে নিজেও বন্দী আছেন চোদ্দটা দিন।
আনাসারা রোগে পুরীর দেবালয়ে স্তব্ধ আজ তিন ভাই বোন।
বছরে চৌদ্দ দিন গৃহ বন্দী থাকা এতো নতুন কিছু নয়,
নিজেকে বন্দী রাখে পৃথিবীটা সুস্থ হবে বলে।
অশোকের পাপড়ি ঝরে পড়ে টাপুরটুপুর বৃষ্টির কথকতায়,
স্নান যাত্রা শেষ করে সর্দি জ্বরে আক্রান্ত মহাপ্রভু এখন মনুর নির্দেশে একপক্ষ কাল লুকিয়ে কোথায়।
সমুদ্র গর্জন, ত্রিপদী শঙ্খ ধ্বনি, ধূপ-দীপ স্তব্ধ হয়ে আছে।
ঈশ্বর জানেন সবকিছু,
তাই বহুযুগ থেকে কোয়ারেনটিনে নিজেকে বন্দী রেখে সুস্থ রাখেন পৃথিবীর জীবন যাপন।
এ তো নতুন কোন কথা নয়, নিজেকে আটকে রাখো চোদ্দটা দিন।
ঈশ্বরের গোপন কথোপকথন ব্রহ্মা জানে কোথায় লুকিয়ে রাখা ভালো।
তাই ঘরে থাকো ঈশ্বরের সাথে, যেখানে পৃথিবীটা সুস্থ হতে পারে!

ভারতবর্ষ হেঁটে যাচ্ছে ফুটপাত ধরে

বিদুৎ গতিতে ছড়িয়ে গেল সে খবর
সারা ভারতবর্ষ হেঁটে যাচ্ছে ফুটপাত ধরে,
সমুদ্র কষ উগড়ে দিচ্ছে বিষাক্ত সাপ, দৌপদির গর্ভে যে শিশু জন্ম নিয়েছে কাল,
রাজপথে তার মুখ থেকে বেরিয়েছে অভিশাপ।
সমুদ্র বমনে রাজা-রানী ধ্বংস হবে শ্মশানের কাঠে
তাই ঈশ্বর ছিনিয়ে নিয়েছে পতাকা,
এত পাপ কোথায় রাখবে শয়তানের দল,
জগন্নাথ অসুস্থ এখন, সমুদ্র ঝড়ের আগেই পতাকা নিয়ে গেছে ঈশ্বর গোপন গহ্বরে।
ধ্বংস অনিবার্য, আগাম বার্তা দিয়েছে পুরীর পতাকা।
এখন সাবধান হয়ে কোন লাভ নেই, সমুদ্র ঢেউয়ে মহাতপা ছেড়েছে আজ বাসুকির নিঃশ্বাস।
বিদুৎ গতিতে ছড়িয়ে গেল সে খবর
সারা ভারতবর্ষ হেঁটে যাচ্ছে ফুটপাত ধরে।
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!