“এই শ্রাবণে আষাঢ়ে গপ্পো” বিশেষ সংখ্যায় মাথুর দাস

যম – বাসনা

রাতদুপুরে পৌঁছে গিয়ে  যমের বাড়ির দরজায়
বারুইপুরের বারিদবরণ চিল চিৎকার গরজায়,
‘ডাকলে কেন এই অসময় ? বয়স এখন কাঁচা,
বেশ কিছুদিন  থাকাই যেত  আরাম করে বাঁচা’ ।
‘যম-বাড়িতে   কম  পড়েছে   মানুষ-টানুষ  কিছু’,
বললো শমণ, ‘তাই তো এমন লেগে গেলাম পিছু ;
স্বর্গ খালি দীর্ঘকাল-ই, দিন যত যে গড়ায়
নরক শুধু উপচে পড়ে পাপী তাপী মড়ায় ।
লক্ষ  কোটি   নাম  তালিকা   চিত্রগুপ্তের  খাতা,
হচ্ছেটা কী ? উল্টোপাল্টা লোক আসছে যা-তা !
তনুহীন এক অনুজীবকে  দিই ছড়িয়ে মর্ত্যে,
পারে যদি সে নিখুঁত কিছু  সৎ লোককে ধরতে !
কিন্তু হায় নিরুপায় হয়তো বুঝি ভুল হয়েছে যন্ত্রে,
যাকে তাকে তাই আনছে ধরে বেভুল কোন মন্ত্রে’ ।
গপ্পোটুকু  আষাঢ়ে নয়,  খাসা যে তার  ধান্দা,
আনতে মানুষ নিয়েছে ঠিকা যমের যত বান্দা ।
আঁতকে উঠে ঘুম ভেঙে যায়, মনের মধ্যে ভয়,
হচ্ছেটা কী ? বাছতে সে লোক সব উজাড় না হয় !
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!