|| প্রেমের বাসন্তী চিঠি সংখ্যায় || কুণাল রায় (প্রবন্ধ)

আজ সরস্বতী পূজা । বাঙালির ভ্যালেন্টাইন্স ডে। অর্থাৎ এক ভিন্ন প্রেমের দিবস। তবে প্রণয়ের বাঁধনে পড়েছে দুই মন। তাই সকাল থেকেই  বাগদেবীর আরাধনা পাশাপাশি  মুধুর প্রেমের গান, কোটেশন, গিফ্টস ইত্যাদির দাপটে জীবনটা কিছুটা হলেও প্রেমময় হয়ে উঠেছে। তবে ‘প্রেম’ শব্দটি কি শুধুমাত্র আজকের এই বিশেষ দিনটির জন্যই তুলে রাখা এক অনুভূতি!  বোধহয় নয়। প্রেম ভেসে বেড়ায় আকাশে, বাতাসে। বাড়ির আনাচে কানাচে। আমাদের মনের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে ছুটে বেড়ানো এই অনুভূতি কিছুটা হলে চরম বাস্তবের হাত থেকে মুক্তি দেয়। তা যাই হোক, আজকের এই প্রেমের মুহূর্তগুলো মনের মণিকোঠায় যে এক অতি বিশেষ স্থান অর্জন করতে সক্ষম, তা এক বাক্যে স্বীকার করে নেওয়া যায়!

কথায় বলে প্রেমের কোন বয়স নেই। প্রেম যে কোনো বয়সেই হতে পারে। প্রেম যে কোনো কারুর সাথেই হতে পারে। তবে তা প্রকৃত প্রেম কিনা বলা কঠিন! প্রেমের কোন সঙ্গা নেই, সেই অর্থে। যা ছোঁয়া যায় না , শুধুমাত্র উপলব্ধি করা যায়, তার আবার সঙ্গা কি! তবে প্রেম জীবনে কতবার আসে? জানা আছে কারও? তবে জানি কেউ বলবেন একবার, কেউ দুবার বা কেউ কেউ বহুবার- তাই তো? আসলে প্রকৃত অর্থে প্রেম আসে একবারই এই জীবনে। সে আসে নিস্তব্ধ চরণে। টোকা দেয় মনের জানলায়। আর আমরা সেই জানলা সহজেই খুলে দি, ভালোবাসার এক ভিন্ন রং ও স্বাদকে উপভোগ করবার উদ্দেশ্যে। আবার আমাদের ভুল বা ত্রুটির জন্য সেই প্রথম প্রেম বিদায়ও নেয় এই জীবন থেকে। হৃদয় তখন টুকরো টুকরো হয়ে যায়। চোখের কোনে আসে অশ্রুবিন্দু। মুহূর্তে সকল পার্থিব সুখ পরিণত হয়ে এক অপার্থিব যন্ত্রনায়। মনে পড়ে তার মুখ, সেই স্মৃতিবিজরিত সন্ধ্যাগুলো, সেই কথাগুলো যে সে কেবল ‘আমাকেই’ ভালোবাসে, সেই প্রতিশ্রুতি ও পরে ‘আমাকে’ রিক্ত করে চলে যাওয়া। এই ঘটনার পর, এই জীবনে প্রেম হয়ত আসে, তবে তার গভীরতা সামান্য। কাঁচের স্বর্গের মত ভঙ্গুর সেই অনুভূতি। তখন তা ঠিক প্রেম নয়, যা ছিল গতকাল গোধূলিতে!
সকল অনুভূতি সমুদ্রের ঢেউয়ের মত আঁচড়ে পড়েছে সৈকতে। রূপান্তরিত হয়েছে সহস্র বারিবিন্দুতে। সে আজ অতীত। তবুও ভীষণ ভাবে বর্তমান। এক লুকোনো আশা। বারে বারে ফিরে দেখতে চাইছে এই মন। রিক্ত হচ্ছে সে সর্বক্ষণ!!
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!