সাপ্তাহিক ধারাবাহিক উপন্যাসে অভিজিৎ চৌধুরী (পর্ব – ৪৯)

না মানুষের সংসদ

স্যার এখন মানুষের সঙ্গে কথা বলেন না ।
চিত্রলেখা বলল,
সে তো আগেও ছিল । নিজের মনেই থাকতেন ।
তোদের সঙ্গে তো মিশতেন ।
এখন আমাদের সঙ্গেও কথা বলেন না ।
চিত্রলেখা বলল,
তবে পড়ান কি করে !
ব্ল্যাক-বোর্ডে আপন মনে লিখে যান আর প্রশ্ন করলে উত্তর দেন না ।
হেড-স্যার জানেন ! তিনি তো খুব কড়া ।
শ্রোত্রিয় বলল, হেড-স্যার নন্দবাবুকে ডেকে কথা বলেছিলেন ।
নন্দ স্যার কি বললেন !
নন্দ স্যার বললেন, উনি এখন টিকটিকি, শেয়াল, পেঁচা, চশমা পাখিদের নিয়ে না-মানুষের সংবিধান রচনা করছেন । এরপর ওদের সংসদ গঠন সম্পূর্ণ হলে তখন তিনি মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন ।
চিত্রলেখা খুব হাসতে থাকল । তারপর বলল, এই রে – শুনে হেড-স্যার কি বললেন !
প্রথমে তো হতবাক হয়ে গেলেন । তারপর নাকি জিজ্ঞেস করেছিলেন – ওঁর এরকম সিদ্ধান্তের কারণ কি !
কি বললেন !
মানুষের লোভ আর অত্যাচারের হাত থেকে না – মানুষদের বাঁচাতে গেলে ওদের মধ্যে সংঘবদ্ধতা, শৃঃখলা এবং আদর্শ নেতার উদ্ভব ঘটাতে হবে ।
চিত্রলেখা এবার বলল,
তোরা উদ্বিগ্ন হচ্ছিস কেন । বাবুই পাখির শিল্পকলা মানুষকে তো উদ্বুদ্ধ করে । সত্যিই তো আমরা মানুষেরা হিংস্র।
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!