Cafe কলামে – আত্মজ উপাধ্যায় (পর্ব – ১২)

বিবাহঃ নারী পুরুষের যৌনমিলনের অনুমতি? – ২

কিছু দেশ নিজস্বভাবে ধর্মীয় বিবাহ সম্পাদন করে না এবং সরকারী উদ্দেশ্যে পৃথক নাগরিক বিবাহের প্রয়োজন হয়।

An arranged marriage between Louis XIV of France and Maria Theresa of Spain.

বিপরীতভাবে, সৌদি আরব যেমন একটি ধর্মীয় আইনী আইন দ্বারা পরিচালিত কিছু দেশে নাগরিক বিবাহের অস্তিত্ব নেই, যেখানে বিদেশে সংগঠিত  বিবাহগুলি যদি তারা ইসলামিক ধর্মীয় আইনে সৌদি ব্যাখ্যার বিপরীতে চুক্তিবদ্ধ হয় তবে তারা স্বীকৃত হতে পারে না। লেবানন ও ইস্রায়েলের মতো মিশ্র ধর্মনিরপেক্ষ-ধর্মীয় আইনী ব্যবস্থা দ্বারা পরিচালিত দেশগুলিতে দেশটিতে স্থানীয়ভাবে নাগরিক বিবাহের অস্তিত্ব নেই, যা আন্তঃবিশ্বাস ও বিভিন্ন বিবাহকে মানেনা, যা দেশের ধর্মীয় আইনকে চ্যালেঞ্জ করে ( interfaith and various other marriages that contradict religious laws); তবে বিদেশে গৃহীত নাগরিক বিবাহগুলি ধর্মীয় আইনগুলির সাথে দ্বন্দ্ব থাকলেও রাষ্ট্র কর্তৃক স্বীকৃত হয়। উদাহরণস্বরূপ, ইস্রায়েলে বিবাহকে স্বীকৃতি দেওয়ার ক্ষেত্রে  কেবল বিদেশে সংগঠিত বৈধ নাগরিক বিবাহকেই স্বীকৃতি দেয় না,তারা বিদেশে সমকামী নাগরিক বিবাহকেও মেনে নেয়।
বিবাহ সাধারণত জড়িত ব্যক্তিদের মধ্যে  আইনী বাধ্যবাধকতা তৈরি করে এবং যে কোনও বংশধর তারা উৎপাদন বা গ্রহণ করতে পারে। আইনী স্বীকৃতির শর্তাবলী, বেশিরভাগ সার্বভৌম রাষ্ট্র এবং অন্যান্য বিচার বিভাগ বিবাহ বিপরীত লিঙ্গের দম্পতির মধ্যে সীমাবদ্ধ  এবং বহু বিবাহ নিষিদ্ধ করে, বাল্য বিবাহ এবং জোরপূর্বক বিবাহ মানেনা। আধুনিক যুগে, ক্রমবর্ধমান সংখ্যক দেশ, প্রধানতঃ গণতন্ত্র বিকাশকারী, আন্তঃবিশ্বাস ( interfaith), ভিন্ন জাতির এবং সমকামী দম্পতির বিবাহকে  আইনী স্বীকৃতি দিয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে, অনুশীলনের বিরুদ্ধে জাতীয় আইন থাকা সত্ত্বেও বাল্য বিবাহ এবং বহুবিবাহ ঘটে।
বিংশ শতাব্দীর শেষের দিক থেকে পশ্চিমের দেশগুলিতে বড় বড় সামাজিক পরিবর্তনের ফলে প্রথম বিবাহের বয়স বাড়ার সাথে সাথে, বিবাহের সংখ্যার পরিসংখ্যানগুলিতে পরিবর্তন এসেছে এবং লোকে কম বিয়ে করছে; বিবাহের পরিবর্তে সহবাস  বেছে নিয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, ১৯৭৫ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ইউরোপে বিবাহ সংখ্যা 30% হ্রাস পেয়েছে।
ঐতিহাসিকভাবে, বেশিরভাগ  দেশের সংস্কৃতিতে বিবাহিত মহিলাদের নিজস্ব খুব কম অধিকার ছিল, পরিবারের সন্তানদের পাশাপাশি স্বামীর সম্পত্তি হিসাবে  যেমন, তারা সম্পত্তির মালিক হতে বা উত্তরাধিকারী হতে পারে না বা আইনগতভাবে তাদের প্রতিনিধিত্ব করতে পারেনা ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে ইউরোপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং উন্নত বিশ্বের অন্যান্য জায়গাগুলিতে বিবাহ স্ত্রীর অধিকারকে উন্নত করার লক্ষ্যে পর্যায়ক্রমে আইনী পরিবর্তন হয়েছে।
এই পরিবর্তনের মধ্যে রয়েছে স্ত্রীদের তাদের নিজস্ব পরিচিতি দেওয়া, স্বামীর শারীরিকভাবে ডিসিপ্লিন শেখানোর  অধিকার বিলুপ্ত করা, স্ত্রীদের  সম্পত্তি  অধিকার প্রদান, বিবাহ বিচ্ছেদের আইন উদারকরণ, স্ত্রীদের তাদের নিজস্ব প্রজনন অধিকার প্রদান এবং যৌন সম্পর্কের ক্ষেত্রে স্ত্রীর সম্মতি প্রয়োজন অন্তর্ভুক্ত। এই পরিবর্তনগুলি মূলত পশ্চিমা দেশগুলিতেই ঘটেছে।
একবিংশ শতাব্দীতে বহু বিষয়ে বৈবাহিকীর বিতর্ক অব্যাহত রয়েছে। যেমন বিবাহিত মহিলাদের বৈধ মর্যাদার, অবস্থান, বিবাহের মধ্যে সহিংসতার,  আইনী স্বীকৃতি বা কড়া নিয়ম বিষয়ে, যৌতুক ও কনের কেনার মতো ঐতিহ্যবাহী বিবাহ রীতিনীতি, জোর করে বিবাহ, বিবাহযোগ্য বয়স এবং বিবাহপূর্ব এবং বিবাহ বহির্ভূত যৌন আচরণ।
নৃ-তত্ত্ববিদরা/  নৃ-বিজ্ঞানীরা সংস্কৃতি জুড়ে বিবিধ বৈবাহিক প্রথার কথা পেড়েছেন, সংজ্ঞা প্রস্তাব করেছেন। এমনকি পাশ্চাত্য সংস্কৃতিতেও “বিয়ের সংজ্ঞাগুলি এক নিয়ম  থেকে  অন্যত্র অন্য নিয়মে ঝুঁকে মিশে যাবার প্রবণতা থাকে বা মাঝামাঝি অবস্থায় থাকে।” (যেমন ইভান গার্সটম্যান লিখেছেন)।
প্রথা বা আইন দ্বারা সম্পর্কিত স্বীকৃতিঃ
মানব বিবাহের ইতিহাসে (১৮৯১ সালের), এডওয়ার্ড ওয়েস্টারমার্ক Edvard Westermarc বিবাহকে সংজ্ঞায়িত করেছিলেন যে “পুরুষ ও নারীর মধ্যে স্থায়ী সংযোগ , বংশবৃদ্ধি ছাড়াও  কম বেশি একত্র থাকার সময়কে বিয়ে বলা যায়”।
পশ্চিমী সভ্যতার ভবিষ্যত বিবাহ (১৯৩৬)(The Future of Marriage in Western Civilization,1936), তিনি তার পূর্ববর্তী সংজ্ঞাটি খারিজ করে, পরিবর্তে অস্থায়ীভাবে বিবাহকে “প্রথা বা আইন দ্বারা স্বীকৃত এক বা একাধিক নারীর সাথে এক বা একাধিক পুরুষের সম্পর্ক” হিসাবে বলেছেন।
সন্তানের বৈধতাঃ
The anthropological handbook Notes and Queries (1951) বই অনুযায়ী, “একজন পুরুষ এবং একটি মহিলার মধ্যে মিলন যেমন মহিলার থেকে জন্ম নেওয়া শিশু, উভয় অংশীদারের, স্বীকৃত বৈধ সন্তান“।
ভারতের বহুবিবাহের প্রথার একটি গোষ্ঠি, নায়ার সম্প্রদায়, এর বিবাহ বিশ্লেষণে পন্ডিতরা দেখতে পান, এই গোষ্ঠিতে স্বামীর কোন ভূমিকা নেই প্রচলিত অর্থে। পশ্চিমে সেই একক ভূমিকার মত বিভক্ত,  মহিলার বাচ্চাদের একজন অনাবাসী “সামাজিক বাবা” এবং মহিলার র প্রেমিকদের মধ্যে একজন ‘জন্মদাতা বাবা’। এই পুরুষগুলির আইনত কারুররই বাবা হবার অধিকার ছিলনা, সন্তানের উপর দখল ছিলনা।
এটি পন্ডিতগণদের  বিবাহের একটি মূল উপাদান হিসাবে যৌনতার নাগাল বা যৌনসহবাসেই বিয়ের কারণ, এই ভাবনা উপেক্ষা করতে সাহায্য করল। এবং একমাত্র সন্তানের বৈধতার ক্ষেত্রে বিয়ে সংজ্ঞায়িত করতে বাধ্য করেছিল: বিবাহ হল সম্পর্ক স্থাপন, মহিলা এবং এক বা একাধিক ব্যক্তির মধ্যে, যা একটি সন্তান মহিলার গর্ভে জন্ম নেয় এমন একটা অবস্থায়, যেটা কোন নিয়ম বা কোন সম্পর্ক বাধা দেবেনা। সন্তানের সমাজ বা সামাজিক স্তরের সাধারণ সদস্যদের কাছে সাধারণভাবে জন্ম-মর্যাদার অধিকার হিসাবে বিবেচিত হবে।
অর্থনৈতিক নৃবিজ্ঞানী ডুরান বেল(Economic anthropologist Duran Bell) বৈধতা ভিত্তিক সংজ্ঞাটির ভিত্তিতে এই সমালোচনা করেছেন, বৈধতা ভিত্তিক সংজ্ঞাতে দেখা যায়, কোনও কোনও সমাজের  বিবাহের জন্য বৈধতার  প্রয়োজন হয় না। যেখানে মা বিবাহিত নয় সেখানে তার অবৈধ সন্তান সমস্যায় পড়বে।
 এডমন্ড লিচ (Edmund Leach), বলেন বিয়ের কোন এক নিয়ম সমাজের সর্বত্র, খাটেনা। বিভিন্ন সমাজের নীতি প্রথা আলাদা আলাদা। তিনি ১০টা অধিকার বিয়ের সাথে যুক্ত বলে দেখানঃ
“কোনও মহিলার সন্তানের আইনী পিতা প্রতিষ্ঠা করা।
একজন পুরুষের সন্তানের আইনী মা প্রতিষ্ঠা করা।
স্ত্রীর যৌনতায় স্বামীকে একচেটিয়া অধিকার প্রদান করা।
স্বামীর যৌনতায় স্ত্রীর একচেটিয়া অধিকার দেওয়া।
স্ত্রীর গার্হস্থ্য ও অন্যান্য শ্রমে  স্বামীকে আংশিক বা একচেটিয়া অধিকার প্রদান করা।
স্বামীর গার্হস্থ্য ও অন্যান্য শ্রমসেবার ক্ষেত্রে স্ত্রীকে আংশিক বা একচেটিয়া অধিকার প্রদান করা।
স্ত্রীর মালিকানাধীন বা সম্ভাব্যভাবে সম্পত্তির উপর সম্পত্তিকে আংশিক বা সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ দেওয়া।
স্বামীর সম্পত্তির মালিকানাধীন বা সম্ভাব্যভাবে সম্পত্তির উপর স্ত্রীর আংশিক বা সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ দেওয়া।
বিবাহের বাচ্চাদের সুবিধার জন্য – একটি অংশীদারিত্ব – সম্পত্তি একটি যৌথ তহবিল স্থাপন করা।
স্বামী এবং তার স্ত্রীর ভাইদের মধ্যে একটি সামাজিকভাবে উল্লেখযোগ্য ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক’ প্রতিষ্ঠা করা।
Current Anthropology ১৯৯৭ সালে একটা প্রবন্ধে, ডুরান বেল বিয়ে নিয়ে বলেছেন,”এক বা একাধিক পুরুষের (পুরুষ বা মহিলা) মধ্যে  একটি সম্পর্ক যা  পুরুষদের একটি পৃথক বা ব্যক্তিগত মালিকানা তৈরি করে  ঘরোয়াভাবে ও যৌন সংগমের অধিকার দাবি-অধিকার প্রদান করে এবং সেই মহিলা কারা যারা সেই পুরুষদের বাধ্যবাধকতা স্বীকার করে, সেই মহিলাকে চিহ্নিত করে। ” একটি পৃথক  বা ব্যক্তিগত মালিকানা প্রসঙ্গে ডুরান বেল ব্যাখ্যা করেছেন, অনেক সময় ভাই মরে গেলে সন্তান সহ  বিধবাকে বংশ রক্ষার জন্য ভাসুর বা দেবর বিয়ের প্রচলন (Levirate marriage) আছে , সেক্ষেত্রে একজন সামাজিক বাবা সমাজে প্রতিষ্ঠা পায়।

বাইবেলে বর্ণিত তামারের গল্প (Tamar (in Genesis 38)

ভারতে ও অনেকে সমাজে, এক নারীর পরিবারের অনেক ভাইয়ের সাথে বিয়ে, বা এক পুরুষের স্ত্রীর অনেক বোনের সাথে বিয়ে ঐতিহ্যগত, ও চালু আছে।

চলবে

Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!