• Uncategorized
  • 0

কবিতায় সবর্না চট্টোপাধ্যায়

স্তব্ধতা

আলোয় দেখেছ? পড়ে আছে যত ফুল
বৃষ্টি নামলে মুষড়ে পড়বে যারা,
কুড়িয়ে রাখো না, মনে করে চেনা ভুল
আবার জীবনে বাঁচতে চাইছে তারা।
তারাই তো জানো, বিচ্ছেদ এক আলো
পাথরে পাথরে উদ্দাম ঠোকাঠুকি
মুক্তি মানে কি, আদপে এ মাটি কালো?
বাঁচার স্বার্থে আগুনেই উঁকিঝুঁকি।
আগুন যেমন নিজের স্বার্থে বাঁচে
কাওকে পোড়াতে রেখেছে কখনো বাকি?
সুখের হিসাব, বাকিটা নিজের কাছে
অভিনয় দেয় জীবনকে বড়ো ফাঁকি।
এখনো স্তব্ধ, এখনো রাত্রি মিছে?
কতদিন বলো পোড়াব নিজেকে আর?
জানি বিষধর আজও কাঁকড়া বিছে
কামড়ালে পরে এ জীবন ছাড়খার।
তবুও আলোয় বাঁচতে চাইছে যারা
আর কতকাল খরায় কাটাবে বলো?
প্রাত্যহিকের অস্থি ভাসানো হলে
আবার কখনো একসাথে পথ চলো!

মৃত কথকের গান

কতদিন বেঁচে আছি, কত রাত সাজিয়েছি খাট
কামিনীর গন্ধে জ্বলে বিকেলের সলতেখানি,
এখানে দেখো এক, খোলা বারান্দা আছে
ছুঁড়ে দাও একমুঠো সোনালী ধান
পাখিদের ঠোঁটে, ঠোঁটে।
এই তো বেঁচে থাকা, স্যাঁতস্যাঁতে গোসাপের খোলে
শীতঘুম নামে শিরদাঁড়া ধরে,
আলগা হয় মাটি। আলগা বাঁধনে তুমি
ধরে রাখো হাল…
আসলে বুঝেছো ঠিক,
‘এই এক বিফল প্রেমিক,
মুছেছি দুঃখসুখ, তোমারই আঁচলে কেবল’!
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!