• Uncategorized
  • 0

কবিতায় অতনু চৌধুরী

নারী

নারীর এত রূপ এক অঙ্গে
নারী বিনে পুরুষ কি চলে নিজ সঙ্গে?
নারী সৃষ্টি-সুখ
নারী ধ্বংসের মুখ
নারী পতিত পাবনী
নারী অসুর দলনী
নারী সর্বংসহা
নারী শাশ্বত বহা
নারী পূজার বেদি
নারী শক্তি ময়ী দেবী।
নারীর এত রূপ এক অঙ্গে
নারী বিনে পুরুষ কি চলে নিজ সঙ্গে?
যাঃ দেবী সর্বভূতেষু শক্তি রূপেন সংস্হিতা
নমস্তস্য নমস্তস্য নমঃ নমঃ নমহাঃ
যে নারী সাধন পূজন ভক্তি রসের ধারা
সে নারী কেন পুরুষের কামনা বাসনার ঘড়া?
যে নারী মাতৃরূপিনী ভগ্নিরূপিনী ঘরে ঘরে
সে নারী কেন ধর্ষিতা, নির্ভয়ার মতো মরে?
যে নারী শক্তি রূপিনী অন্যায়ের সংহারকারিনী
সে নারী কেন অবলা দূর্বলা হয়ে মরবে দিবা-রজনী?
দিকে দিকে পদে পদে নারীর অপমান
সময় এসেছে নারী হ ওএবার দন্ডায়মান
অবলা দূর্বলা বিশেষণ সব ঝেড়ে ফেলো
অন্যায়কে পদ দলিত করে মুখ -মুখোশকে ছি৺ড়ে ফেলো।
আর কতদিন পড়ে পড়ে মার খাবে বলো নারী?
পুরুষের সমান অধিকার দু’হাতে নাও কাড়ি।
মুখ বুজে অন্যায় অপমান যত যাবে সয়ে
আরো আরো অন্যায় অত্যাচার তোমার পানে আসবে ধেয়ে।
আলো-অন্ধকার, অন্ধকার-আলো এই যদি হয় নিয়ম
তাহলে তোমা’পরে কেন অন্ধকার ?কেন অনিয়ম?
দিকে দিগন্তরে চোখ মেলে দেখো চাহি
পুরুষের সঙ্গে সমানতালে যুগের দাবি চলিয়াছে বহি।
তবে কেন হবে লাঞ্ছিত অপমানিত নিরুপায়?
সব দিয়েও সব থেকেও কেন এত অসহায়?
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!