“এই শ্রাবণে আষাঢ়ে গপ্পো” বিশেষ সংখ্যায় তুহিন কুমার চন্দ

লাভার জঙ্গলে

তারপর ছিটকিনি খুলে বাইরে গিয়ে দেখি কেউ কোথাও নেই।বাইরে প্রচন্ড ঠান্ডা।হাড় কাঁপানো শীতে ঘুমের ভেতর উঠতে সত্যি ভীষন বিরক্ত লাগে।
লাভার রিম্ভিক গ্রামের এক হোম ষ্টে তে আজ সকালেই আমি আর ভবানীপ্রসাদ উঠেছি। বৌদ্ধদের বাস এখানে। চারদিকে ঈশ্বর সব যেন নিজের হাতে সাজিয়ে দিয়েছেন।সারাদিন জঙ্গলে জঙ্গলে ঘুরে বেশ ক্লান্ত শরীরে ঘরে ঢুকে খাবার তাগাদা দিতেই চাপরাশি অনন্ত রাই আমায় বললো – বাবু আজ যে বনমুরগী পেয়েছি এমন মুরগী আমরা খুব কমই পাই। আমি বেশ কষা কষা করে রেঁধেছি।
রাতের খাবারটা বেশ আয়েস করেই খেলাম।চারদিকে একটা চাপা নিস্তব্ধতা, মাঝে মাঝে অজানা পাখির বিভৎস চিৎকারে বুকের নিচের ধুকপুক যন্ত্রটা থেমে থেমে যাচ্ছিল।
রাতে দরজায় আরো দু’বার নক করার শব্দ পেয়ে দরজা খুলে দেখেছি কেউ কোথাও নেই।এভাবেই সারাটারাত কেটে গেল আমাদের।ভোর তখনো হতে কিছুটা বাকি।ভোর রাতে ঘুম ভেঙ্গে যায় আমার, আর না ঘুমিয়ে দাঁত ব্রাশ করতে করতে অনন্তকে চা দিতে বললাম।অনন্ত পাহাড়ের ঢালটায় বসে পাইনের ডাল কাটছিলো রান্নার জন্য।রাত থাকতেই এরা দিনের কাজ শুরু করে দেয় বোধ হয়।
অনন্ত বললো- আজ হাটের দিন।আপনাদের খাবার তৈরী করে টেবিলে রেখে দিয়েছি।আপনারা খেয়ে নেবেন সময়মতো।
জিজ্ঞেস করলাম কখন ফিরবে হাট থেকে!
অনন্ত বললো সাম হয়ে যাবে বাবু।
– আচ্ছা, তাড়াতাড়ি চলে এসো।
লাভার একদিকটায় বৌদ্ধ মনেষ্ট্রি,আর অন্যদিকে গভীর ঘন জঙ্গল। সরু একটা রাস্তা চলে গেছে ইচ্ছে গাঁওয়ের দিকে। আমরা প্রাতরাশ সেরে একটু আশপাশটা ঘুরে নিলাম।একটু বিশ্রাম করেই বেড়িয়ে পড়বো ইচ্ছেগাঁওয়ের দিকে।আকাশ আজ বেশ পরিস্কার।অন্যদিনের মতো মেঘলা নয়।দুপুরে পাহাড়ি মাছের ঝোল আর লেটুস শাকের তরকারী বেশ মনমতো খেয়েছি।বিছানায় শরীর ফেলতেই কখন যে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম জানিনা।ভবানীপ্রসাদের ডাকে ঘুমটা ভেঙ্গে গেল।ঘড়িতে তখন প্রায় তিনটা। পাহাড়ে সন্ধ্যে নামে চারটা নাগাদ।তবুও দুই বন্ধু মিলে বেড়িয়ে পড়লাম ইচ্ছে গাঁওয়ের দিকে।অনেকটা হাঁটার পর ছোট্ট একটা গ্রাম।মাত্র চারঘর মানুষকে নিয়ে গ্রামটা। এটাই বোধহয় ইচ্ছে গাঁও।
পাইন বনটা পাড় হতেই সন্ধ্যে নেমে এলো।বিকেলে আমরা কিছুই খাইনি।এক কাপ চা পর্যন্ত না। একটা দোকানও চোখে পড়ছে না।এমন সময় ছিপছিপানী বৃষ্টি শুরু হলো।
আমরা সম্পুর্ন না ভিজলেও আধা ভিজে হয়ে গেছি। ভবানীপ্রসাদ আমাকে হাতের কুনুই দিয়ে একটা গোত্তা দিয়ে বলল- ওই দেখ একটা আলো দেখা যাচ্ছে।গিয়ে দেখি কিছু পাওয়া যায় কিনা।
আমরা অনেকটা চড়াই উৎড়াই পাড় হয়ে শাল পাতায় মোড়ানো একটা দোকানের বারান্দায় গিয়ে উঠলাম।এটা একটা দোকানই বটে।জিজ্ঞেস করলাম চা পাওয়া যাবে? লোকটা কথাটার কোন উত্তর না দিয়ে তাচ্ছিল্যের চাহনিতে ভেতরে চলে গেল।আমরা বোকার মতো চেয়ে থাকলাম কিছুক্ষন। চমকে উঠলাম একটা মেয়েলি কন্ঠস্বরে।
– হা বাবু,এখানে মোমো পাওয়া যাবে।আপনারা মোমো খেতে খেতে আমি চা বানিয়ে দেব। খাবেন তো?
– বানাও।তবে তাড়াতাড়ি করবে।আমাদের এ পথটা অজানা অচেনা।
– কুছু ভাববেন না বাবুরা। আমাদের কাঞ্চা আপনাদের পথ দেখিয়ে লিয়ে যাবে।
– বাঃ বেশ,বেশ।
আমি ভবানীর দিকে তাকিয়ে দেখি ভবানী ছড়া লেখায় ব্যস্ত।
“অন্ধকারে পাহাড় বেয়ে
আমরা দুটি প্রানী,
ফিরবো ঘরে বৃষ্টি নিয়ে
প্রচন্ড হয়রানি।”
ভবানীপ্রসাদ একালের একজন নামকরা শিশু সাহিত্যিক। আমাদের বন্ধুত্ব প্রায় পঞ্চাশ বছরের।
আমি হেসে বললাম- চা খেতে খেতে রাত হয়ে যাবে ভবানী।
ভবানী বলল- ঘড়িতে দেখো কয়টা বাজে।
ঘড়িতে তাকিয়ে দেখি রাত দশটা বাজে।
ঠান্ডায় শরীরে একটা প্রচন্ড ঝাকুনী খেয়ে ঠকঠক করে কাঁপতে লাগলাম।
মেয়েটিকে বললাম- তোমার কাঞ্চা কোথায় বহিন।
মেয়েটি ডাকলো – এ নাশু।কুথায় গেলিরে,জলদি আয়।
মিনিট দশেকের মধ্যে একটা কালো ছিপছিপে প্রায় ছ’ফুট লম্বা লোক হাতে একটা জংধরা টর্চ নিয়ে আমাদের সামনে এসে দাঁড়ালো।গামছায় গা’টা ঢাকা।এই শীতে খালি গা’য়ে আছে কিভাবে মানুষটা।বুকের সব ক’টা হাড় বাইরে বেরিয়ে আসছে।চোখ কোটেরের ভেতর থেকে যেন ঠিকরে বেড়িয়ে আসছে।
একটা ভয়ার্ত চেহারার মানুষ।আমাদের দিকে তাকিয়ে বললো- চলিয়ে।
আমরা দ্রুত পা চালিয়েও ওর সাথে পেরে উঠছি না।পাহাড়ি রাস্তা তায় বেশ পিচ্ছিল। আমরা বার কয় আছাড় খেলাম। আমাদের পথ দেখিয়ে নেয়া নাশু গটগট করে চলছে যেন এটা সুন্দর রাস্তা। একবার আমাদের বলল- জলদি যেতে হবে বাবু। সুবে আমার বহুত কাজ আছে,তখন কিন্তু আমি আর যাবো না বাবু।
বেশ দূরে বনমোড়গের তীক্ষ্ণ ডাকে সারা বনটা চমকে উঠলো।সেই ডাকেই ভবানী চমকে গিয়ে পাহাড়ের ঢালটায় গড়িয়ে গেল বেশ খানিকটা।
বাঁচাও বাঁচাও চিৎকার করতেই নাশু পটাপট ওকে তুলে নিয়ে এলো।আশ্চর্য হলাম এই ভেবে যে পাহাড়ের পিচ্ছিল উঁচু নিচু রাস্তাটায় কত অভ্যস্ত এরা।
আর হাঁটার শক্তি পাচ্ছে না পা দুটো।
নাশুকে বললাম- আর কতটা যেতে হবে ভাই।
– নজদিকেই আছে।
– আমরা আসার সময় তো এত সময় লাগেনি ভাই।আমরা ঠিক যাচ্ছি তো?
– ইটা অন্য রাস্তা আছে বাবুজী।ইকটু ঘুড়তি রাস্তা।সময় লাগবেই।
রাত গভীর থেকে আরো গভীর হয়েছে।এখান থেকে আমরা আমাদের হোম ষ্টে কোথায় বলতেও পারবো না। শুধু হোম ষ্টের নামটা মনে আছে ‘অনন্তঘর’।
হাতের ঘড়িতে এলার্ম বেজে উঠলো ভোর চারটের।
– এ….ত রাত!!
নাশু আমাদের একটা পাহাড়ি ঢাল দেখিয়ে দিয়ে বলল- ই রাস্তা কা নিচেন আপনাদের স্ট্রেরে আছে বাবু।বলেই দ্রুত কুয়াশায় হারিয়ে গেল।
আমরা ভোর না হওয়া পর্যন্ত রাস্তার পাশেই স্থায়ী একটা বাঁশের বেঞ্চে বসে পড়লাম। পাহাড়ি মশার প্রায় হাজার খানেক কামড় খেয়েও ঠিক ছিলাম।পায়ে চুলকাতেই বুঝলাম অন্তত কয়েক’শ জোঁক পায়ে কামড়ে ধরে আছে। আগে বুঝতেই পারিনি। জোঁক ছাড়াতে ছাড়াতেই ভোরের আলো ফুটতে লাগলো। আস্তে আস্তে লোটা হাতে পাহাড়ি মানুষজন সকালের কাজ সারতে এদিক ওদিক যাচ্ছে।
গাছের ডালে দাঁত ঘষতে ঘষতে একটা পাহাড়ি ছেলে কিসব যেন আমাদের বলে চলে গেল।ভাষাটা জানা নেই জন্য কিছুই বুঝতে পারলাম না।
আমরা ভীষণ ক্লান্ত,ক্ষুধার্ত, পিপাশার্ত। একদল লোক আমাদের দিকেই আসছে মনে হয়।আমরা কিছুটা ভয় পেয়ে গেলেও,ভয়ের কিছুই ছিলো না।লোকগুলো আমাদের কাছে এসে কি যেন জিজ্ঞেস করলো আমি হিন্দিতে বললাম- সমঝা নেহি।
এবার যিনি কাছে এলেন তিনি দস্তুর বাঙ্গালি। গোলগাল চেহারা, মুখে খোঁচা দাড়ি।বয়েস ষাট পেরিয়ে গেছে। আমার দিকে বারকয়েক তাকিয়ে জিজ্ঞেস করলো- আপনারা এখানে এই শ্মশানে কি করছেন?
– শ্মশান!!!
আমরা বললাম- আমরা পথ হারিয়ে এখানে এসেছি।আমরা ইচ্ছেগাঁও দেখতে বেড় হয়েছিলাম।সন্ধ্যে হওয়ায় আমরা এখান থেকে বেশ কিছুটা গেলে যে দোকানটা পড়ে সেখানে মোমো চা খেতে খেতে রাত হয়ে যাওয়ায় ঐ দোকানের মেয়েটা তাদের নাশু কাণছাকে দিয়ে আমাদের ‘অনন্তঘর” এ পাঠাতে দিয়েছিলো।কিন্তু ভোরের আগেই নাশু চলে যাওয়ায় আমরা ভোরের অপেক্ষা করছিলাম। ভদ্রলোক চোখ দু’টো বড় বড় করে বললেন- ইচ্ছেগাঁও?? দোকানে মোমো খেয়েছেন?? নাশু কানছা??? অনন্তঘর?? আচ্ছা সব ঠিক আছে। আগে আসুন কিছু খেয়ে নিন।তারপর সব শোনা যাবে।
আমরা চা পাউরুটি খেয়ে কখন যে ঘুমিয়ে গেছি কিছুই জানিনা।
ভদ্রলোকের কথায় ঘুম ভাঙতেই চেয়ে দেখি ঘর ভর্তি লোকজন।
দুপুরের খাওয়া এখানেই বাধ্য হয়ে করতে হলো।একদম বাঙ্গালী খানা।নিরামিষ। খাওয়ার পর গোলগাল ভদ্রলোক আমাদের বললেন- আপনাদের জিনিসপত্র কোথায় আছে।
– কেন,ঐ অনন্তঘরে।
-আচ্ছা।
ভদ্রলোক একটা ছেলেকে ডেকে বললেন- একটা মোটর সাইকেল নিয়ে দেখে আয় সব মালপত্র আছে কিনা।
আমরা শুধু ওদের কথাবার্তায় অবাক হয়ে যাচ্ছি। কিছুই বুঝতে পারছি না।
ভদ্রলোক এবার বললেন আপনারা মৃত আত্মার খপ্পরে পড়েছিলেন।
কথাটা শোনামাত্র আমি ঘামতে শুরু করলাম।
ভদ্রলোক আবার বললেন – তিন বছর আগে এক পাহাড়ি ধ্বসে ঐ দোকান সহ চারজনের মৃত্যু হয়েছিল। অনেকেই মুখেই শুনেছি।
চলুন আপনাদের নিয়ে জায়গাগুলো দেখিয়ে আসি।ভয় পাবেন না,আমরা ভুত টুত নই।কিছুক্ষনের মধ্যেই একটা নেপালী ড্রাইভার একটা গাড়ি এনে বাড়িটার গেটে দাঁড় করাতেই ভদ্রলোকটি বললেন- চলুন দেখিয়ে আনি।
আমরা রাজি না হলেও একরকম জোর করেই গাড়িতে উঠিয়ে নিলেন।
এবড়ো খেবড়ো রাস্তায় গাড়িটা চলছে। চারদিকে শুধু পাহাড় আর জঙ্গল। গাড়ীটা একটা হাল্কা ব্রেক কষে পাহাড়ের ঢালটায় দাঁড়িয়ে পড়লো।
– দেখুন তো এ-ই জায়গাটা কিনা!!
একটা ফলন্ত ডালিম গাছ দেখে ভবানী বলল – হ্যাঁ হ্যাঁ,এইতো সেই ডালিম গাছটা।এখানে আমার ভেজা রুমালটা মেলে দিয়েছিলাম।ঐ তো আমার রুমাল। হ্যাঁ এটাই সেই জায়গা।
দেখলাম কিছু নুড়ি পাথর ধ্বসে নিচে নেমে গেছে।বাড়িটার ভাঙ্গা কিছু অংশ মুখ থুবড়ে পাহাড়ের গায়ে পরে আছে।দিন আর রাতের কত পার্থক্য। নিজের চোখে দেখেও বিশ্বাস করতে পারছি না।
– চলুন এবার ‘অনন্তঘরে’।
আমি বললাম- না থাক।
উনি আবার বললেন তবু চলুন, দেখে আসবেন। অনন্তঘরে একসময় কিছু ভূটানী মেষপালক থাকতো।ভেড়ার দুধ আর লোমের ব্যবসা ছিল এদের।চিন ও ভূটান ছিলো এদের ব্যবসার পিঠস্থান।ইঙ্গ-ভূটান যুদ্ধে অনন্তঘরের প্রায় সবাই মারা যায়।থেকে যায় “অনন্তঘর”। এক ভূতুড়ে ঐতিহাসিক সাক্ষী।
কাল রাতে আপনারা এই ভূতুড়ে বাড়িতেই রাতটা কাটিয়েছেন। আপনারা তো ভাগ্যবান মশাই! ভূতের বাড়িতে রাত কাটানো কি সবার ভাগ্যে জোটে!!
ভবানী আমায় ছোট্ট একটা ধাক্কা দিয়ে বলল চল বন্ধু অনেক হয়েছে।এবার ভালোয় ভালোয় ঘরে ফিরে যাই।
আমরা আমাদের গাড়ির কাঁচ দিয়ে দেখছি সুন্দরী কালিম্পংকে আর চোখ বন্ধ করলেই দেখছি কালকের সেই ভয়ঙ্কর রাত্রির বিভৎস চাক্ষুষ অভিজ্ঞতা। তবে কি সত্যি আমরা লাভার জঙ্গলে প্রেতাত্মার সাথে একটি রাত কাটিয়ে এলাম?
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!