মেহফিল -এ- কিসসা দেলাওয়ার জাহান

আইনজীবীর পাত্রী-সঙ্কট

পীড়াপীড়িতে হবু শ্বশুরেরই বাসায় যেতে হলো। অথচ ট্র্যাডিশান ঠিক উল্টো। ছেলে দেখতে কন্যাপক্ষকে ছেলের বাসায় যেতে হয়। অবশ্য আমি ঢাকায় ছিলাম বলে ব্যাপারটা ভিন্ন।
বাড়ি থেকে খাস করে জিয়াদাদা ঢাকা এলেন। আমার গার্জিয়ান । অগত্যা রাজি হলাম। গত তিন মাস ইলিমঢিলিম করেছি। আগে বিয়ে করিনি, বিয়ের কথা শুনলেই অস্থির লাগে। “দেখাশুনাটা থাক। একবার এসো বাবা।” শাশুড়ির ওভার দা ফোন অনুরোধ। অবশেষে যেতেই হলো।
ওকালতির এক বছর ও হয়নি। জুনিওরশিপ করছি। ক’টাকা আর পাই। তাই ২৮ বছর বয়সেও বিয়ে করাটা ভীমরতি বৈকি। ওকালতির শুরুটা এমন একটা বয়সে হয় যখন বিয়ের বয়সটাও নির্লজ্জ রকম সবার চোখে পড়ে। আমি বাবা-মার ছোট ছেলে। ছেলের বউ দেখার ইচ্ছা তাদের।
কথামতো দুপুরেই হাজির হলাম। ওখানে লাঞ্চ করতে হবে। দরজা খুললেন ভদ্রমহিলা। “তোমার হবু শাশুড়ি”, দাদা ইঙ্গিত করলেন। শশুর জুম্মা নামাজে গেছে। আমাদেরও যেতে হলো।
খাবার পরিবেশন করলেন হবু শশুর। শালার মাইয়া, দেখলাম, পাশের ঘরে শুয়ে আছে। আর বাপরে লাগাইছে খাজিনদারিতে। “প্লিজ আপনিও বসেন” –বললাম। না, উনি পরে খাবেন।
খাওয়া দাওয়া শেষে ঘন্টা খানেক পর ড্রয়িংরুমে ডাক পড়লো । বুঝলাম ইন্টারভিউ। ইন্টারভিউ নিবেন শশুর। পড়িমরি করে হরি নাম জপলাম। আলির নাম নিতে ভুললাম না। আলি সাহেব আমার পেশাগত সিনিয়র। গুরুর আশীর্বাদ একান্ত কাম্য।
শাশুড়ি বসলেন না, অদূরে দাঁড়িয়ে রইলেন। আড়ালে একটা ট্রান্সিস্টর রেডিও, আমার হবু বৌ। কান পেতে সব কথা শুনছে।
“পড়াশুনা করেছো কোথায়?” ভাইবা বোর্ডের একমাত্র কমন প্রশ্ন। “ফার্স্ট ক্লাস পাইলা না কেন?” আমাদের ব্যাচে মাত্র ১৭ জন পেয়েছিল”। “হু, পড়াশুনা করো নাই। ৫৫% মার্কস মানে সিজিপিএ কত?” আমাদের অনার্সে গ্রেড ছিল না। কিন্তু উনি গ্রেড থেকে বেরোতেই পারলেন না। “সেকেন্ড ক্লাস ইজ সেকেন্ড ক্লাস”। মাস্টার্সে গ্রেড ছিল, ওটাই চালিয়ে দিলাম। ৩.২৫। “তারমানে ফার্স্ট ক্লাস।” আউট অফ ফোরে ৩.২৫ কেউ ফার্স্ট ক্লাস গুনে না। ৩.০০ তে যে ফার্স্ট ক্লাস এইটা নিশ্চয়ই উনার ফাঁকিবাজ ছেলে মেয়েরা উনারে বুঝাইছে।
“তো ইন্ডিয়া গেলা কেন? ডাবল মাস্টার্সের কি দরকার ছিল?” ভুঙভাঙ বুঝাইলাম যে কিছু শিখছি ওখানে। আমারতো ঐতিহাসিক দিল্লি দেখার ইচ্ছাই মুখ্য ছিল। যা শিখছি তা ফাউ।
“সরকারি চাকরি করবা না? জুডিশিয়ারি দাও। ওকালতি কোনো প্রফেশন হইলো, দিন নাই রাত নাই, পরিবারে টাইম দিতে পারবা না। সকাল হইলেই বোরকা নিয়া ছুটাছুটি”। উনি গাউনটারে মীন করলেন। দাঁতে দাঁত চাপলাম। “জামাই মাইয়া মানুষ না, বোরকা তোমার মাইয়ারে পরামু, খালি বিয়েটা দাও, মাইয়ার ডিস্কোগিরি ছুটামু”। রাগের মাথায় আপনি থেকে তুমিতে নেমে পড়েছিলাম। অবশ্য মনে মনেই।
শুনেছি মেয়ে রাজউক থেকে পাস করে ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হয়েছে।
“আমার এক খালাতো ভাই, খালি হাতে ঢাকা আইলো, প্যান্ট শার্ট বানাই দিলাম, ২০০০ টাকা দিয়া কইলাম আব্বারে দিস । ৪০০ টাকা মাইরা দিয়া বাকিটা দিসে। শালা পরে ল’ কলেজ থাইকা সার্টিফিকেট লৈছে, ওকালতি করে এখন। দেখলেন, উকিল হয় কারা? ছি ছি। ছ্যাঁচড়া ছ্যাঁচড়া।”
“উকিলরা কি মানুষ। ইচ্ছা মতো ফি নেয়, রুল নাই নীতি নাই। টাকাকামড়ি জাত। প্রফেশনটাই আমি ডিস্অনার করি”। মনে হলো উকিল শব্দটা গালি হিসেবে উচ্চারণ করছেন।
বিয়ে করতে বছর গেছে আব্দুস সামাদের। ছেলে ওকালতি করে বললেই ব্যাস- মেয়ের বাপ হাইকোর্ট দেখায়। অবশ্য সামাদের গত আগস্টে বিয়ে হয়েছে।
এই হবুশশুর উকিলদের ধুয়ে দিলেন অথচ কাঁইকুঁই করা ছাড়া কিচ্ছু করলাম না পাছে বদনাম হয়। জিয়া দাদা মাঝে মাঝে সেকেন্ড জজের মতো হু হু করে গেলেন।
ডেকে এনে অপমান করার কি দরকার ছিল? জানতেন তো ছেলে ওকালতি করে।
“বয়স থাকলে জুডিশিয়ারি দাও। জজের বাড়ির আশপাশ দিয়া ওসি হাঁটে না, ওই ওসি আবার উকিলের আইডি কার্ড পর্যন্ত চেক করে”। নিজেকে “বাঁয়ে প্লাস্টিক’র” মতো মনে হইলো। বলতে পারলাম না “আমি ছোট, আমাকে মারবেন না”।
“আমি প্যাচঁপুছ বুঝি না বাবা, বাট জজের জীবন নিশ্চিন্ত জীবন। এতদিন কষ্ট কইরা পড়ালেখা করলা, আবার সারাজীবন কষ্ট কইরা ওকালতি করবা কেন?”
কথা সত্য। কাছের অনেকেই চেয়েছিলো যেন জজ হই। কিন্তু চাকরির জন্য পড়াশোনা করার ধৈর্য আমার নাই। আমি চাকরি করতে চাই না। জীবিকার জন্য ওকালতি, বাঁচার জন্য লেখালেখি।
“মাইয়া উকিলগুলা একেকটা কী, সারাদিন দৌড়াদৌড়ি। বাচ্চা সামলাই কখন? … যাই বলো, জজ জজই”। সবশেষ কথা। একতরফা ডিক্রি।
বাবাজির হাঁটুর বুদ্ধি ধরে এসেছিলো। তোমরা গল্প করো বলে উঠে গেলেন সাবেক সেনা কর্মকর্তা।
হবু শাশুড়ি আমার ইয়েকে নিয়ে বসলেন।
“মেয়েটা আমার খুব রোগা হয়ে গেছে”। শাশুড়ি আমাদের টয়াটিপা দেখে আগেই আত্মপক্ষ নিলেন।
“তোমার নামটা যেন কি?” জিয়া ভাই জিজ্ঞেস করলেন।
“ডাক নাম শিমু, আসল নাম অমুক ধমুক”।
“কোন সাবজেক্টে পড়ছো”?
“হোম ইকোনমিকস”।
হোম ইকোনমিকস কলেজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হয়নি সেটা বললাম না।
ছোট ভাইয়ের ইয়ের সঙ্গে বেশিক্ষন কথা চলে না, জিয়া ভাই আমার দিকে তাকালেন।
“আপনি আমাদের কথাবার্তা শুনেছেন নিশ্চয়ই?” আমি বললাম। “বাবাতো উকিলদের পছন্দ করেন না, আপনি নিশ্চয়ই সহ্য করতে পারেন না?”
“অনেস্ট হলে তো প্রব্লেম নাই” বলে মা’র দিকে তাকালো।
“মক্কেলরা আমার বদনাম করে না বাট ব্যক্তি হিসেবে হয়তো খুব একটা সুবিধার নই”। মেয়ে এমন করে তাকালো “দূরে গিয়া মরেন” টাইপের।
আলি সাহেবের কথা মনে পড়লো। “উকিলের জীবন কোর্ট টু চেম্বার, চেম্বার টু কোর্ট। দেয়ার ইজ নো পার্সোনাল লাইফ ইন বেটুইন”। “ঘর সামলাতে পারবেন তো”? প্রশ্ন করলাম। আলি সাহেবের বৌ বাজার করা থেকে রান্না করা, বাচ্চাদের স্কুলে দিয়ে আসা, নিয়ে আসা একাই করে। আমার দিকে তাকিয়ে হাসলো, মনে হলো মেয়ে এক্ষুনি যেতে রাজি।
বাচ্চোকা ভালা বোলনা চোলনা বহুড়ীকা ভালা চুপ- জ্ঞানীদের কথা। মেয়ে যেন সাত চড়ে রা নাই এমনটা হয়। মেডিটেশনের ধৈর্য আমার নাই। রেগে গেলেই হেরে যাবো। হেরে গেলেই উকিলের বদনাম।
জিয়া ভাই ওকে ওর স্থায়ী ঠিকানা লিখতে বলেছিলো। লিখেছেঃ প্রথমে নাম, তারপর জেলাঃ চাঁপাই নবাবগঞ্জ, থানাঃ শিবগঞ্জ, গ্রামঃ … এইভাবে। উল্টোদিক থেকে। ডাকঘর লিখতে ভুলে গেছে।
কপালে বিপদ আছে। মেয়ে উল্টো চলে নাকি?
নারায়ন গঙ্গোপাধ্যায়ের শ্রেষ্ঠগল্প সঙ্গে ছিল। সতর্কতার সঙ্গে ভেতরে কিছু টিপস রেখে দিয়ে বললামঃ বইটা তোমার জন্য।
ফেরার সময় ইচ্ছে হলো ওকে চোখেচোখে কিছু বলি। পারলাম না। এক্সিট প্যারেডের প্রথম সারিতে আমরা দু’ভাই। তারপর ওর বাবা-মা। মেয়ে এক্কেবারে থার্ড লাইন। “ব্রোঞ্জপদক কোথাকার” – রাগ হলো।
উকিলরাও সত্য বলে বৈকিঃ গত রাতে একফোঁটাও ঘুমাতে পারিনি।
শশুরমশাই বরাবর একটা সাপ্লিমেন্টারি এফিডেভিট দেয়া যায় কিনা ভাবছি।
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!