কবিতায় অসীম কুমার সাহা

আধুনিক জীবন

একি বিস্ময় রবির উত্তাপ, প্রকৃতির কষাঘাত
বিবেক প্রশ্নবিদ্ধ, মনের ঘরে কড়ানারে শুধুই স্বার্থপরতা!
হীনকর্ম অনাচারে,জীবন ও জীবিকার তাগিদে পতিতাও পরিপাটি
থামেনি ধর্ষণ মা-ভগ্নির ক্রন্দন; সমাজ রক্ষার কাজে ওদের অধিকারই- ধিক্কার!
পিতার লাশ মর্গে,পুত্রের অবহেলা- সকরুণ আর্তনাদ
কারো বুক চিঁড়ে;মানবতা শূণ্য
কফিন বিক্রিতে কারচুপি;কাফনের কাপড় বিক্রিতে ডিলারশীপ,টেন্ডারবাজী!
স্বীয় কাফনের বসন লাভে অর্থে নাকি মাপ খর্বে-
পরিধান করবে এ কেমন কৃপণতা?
মুনাফাখোর ও করছে ধর্ষণ লাগাতার!রক্তক্ষরণে অতিষ্ট সাধারন জীবনে হাহাকার!
হয় না বিচার-শুধুই প্রলোভনে ক্ষান্ত ;জায়ুর চিন্তায় আয়ু শেষ,পাণি ধূতে নেই নিখাদ পানি
অ্যালকোহল মিশ্রিত স্যানিটাইজার,হ্যান্ডওয়াশ নিয়ে টানাটানি
মজুদ করে পণ্য দ্রব্যমূল্যের কৃত্রিম সংকট দরিদ্র-মধ্যবিত্তের সঞ্চয় চুষে সঞ্চিত সঞ্চয়ে করের বোঝা;শেয়ার বাজার লুটে লুটেরা
অট্রালিকা গড়ার চাপে জীবননাশ-টেস্টই ভাইরাস!
মুখে নীতি কথন,টক শো’তে আলাপন;পারিতোষিক অন্যথায় ফাইল বন্দী
বিশাল প্রাসাদেই গৃহ পরিচায়িকার অাত্মহনন হয় নির্যাতন;তথাপি বাঁচার তরে নির্মম যুদ্ধ
সংবাদপত্রে প্রকাশ, নিষেধাজ্ঞা আমান্য মৎস্য শিকারীর জেল;পাসপোর্ট জব্দ
সুশীল সমাজের আলোচনা,অকাল প্রয়াণে কারো শোকাতুর পরিবার;স্রষ্টায় -সান্ত্বনা!
মুছে গেছে সিঁথির সিঁদুর,খুলে গেছে নাকের নোলক
জ্বলছে চিতাগ্নি,
খুঁড়ছে কবর সেখানে ও টাকা,আতরের গন্ধ ম্রিয়মান নৈতিক স্থলন আর কত!
তবে কি মৃত্যুর রথ তাদের দ্বারে পৌঁছোবে না?
নাকি চলন্ত সিঁড়ি,লিফট আর দামি গাড়ি-বাড়িই জীবন!
শেষকৃত্য হবে নাকি বেওয়ারিশ লাশে পরিত্যক্ত-এটাই নিয়তি!
নীতি প্রীতি সবই পথের ধূলায় একাকার অথচ নিরাকার একই স্রষ্টার সৃষ্টি জগৎময়
অপার সৌভাগ্যের বার্তাবাহক মানুষ-হুশ হারিয়ে বেহুশ
দিকদর্শনের কাটার ন্যায় সুমেরুর দিকে ধাবিত
স্রষ্টাকে চাওয়া নাকি তাদের কাছে শুধুই ঐশ্বর্য চাওয়া!
কত বিভেদ,বিদ্বেষ, দ্বন্দ্ব,আত্মনুরাগ; মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও সময় অনিশ্চিত-
এ কথায় বাহাদুরি অতঃপর সকল গাণিতিক হিসেবের সিদ্ধান্ত মৃত্যু- প্রমাণিত।
কল্পনার লীলানিকেতন,হতাশার আশা, আভিজাত্যের আস্ফালন,লোভীর নীচতা
এটাই গদবাধাঁ – জীবন।
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!