ধারাবাহিক উপন্যাসে আবুল কালাম আজাদ (পর্ব – ৪২)

দার্শনিক হেলাল ভাই

আমি বললাম: টিটু, কিছু বলতে চাও?
: রিনি আপা আর ঝিনি আপা হেলাল ভাইকে দুইটা চিঠি দিছে।
: তাই? দেখি দাও তো দাও……।
আমার হাতে চিঠি দু’টি দিয়ে টিটু চলে যাচ্ছিল। আমি বললাম: টিটু, চা খেয়ে যাও।
: না, চা খাবনা এখন। কোচিং-এ যাব। টিটু চলে গেল।
হেলাল ভাই বলল: আমাকে বলতো, পৃথিবীর আর কোন দেশে এরকম কোচিং স্টেন্টারে পড়াশোনা করতে হয়?
আমরা কেউ কিছু বললাম না। পৃথিবীর আর কোথাও কোচিং সেন্টার শিক্ষা পদ্ধতি আছে কি না সে খোঁজ-খবর আমাদের কাছে নাই।
হেলাল ভাই বলল: ছেলে-পেলে পড়াশোনা করবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্লাশ রুমে। কিন্তু পড়াশোনা করতে যায় কোচিং সেন্টারে। তাহলে ক্লাশ রুমে তারা কী করে? বসে বসে ললিপপ চোষে? শিক্ষকরা কী করে? ওদেরকে ললিপপ চোষা শেখায়? এই যে চায়ের কাপ হাতে নিয়ে বলছি। আমি ১০০টা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাব। ছেলে-মেয়েদের সাথে, শিক্ষকদের সাথে কথা বলব। সেখানে কীভাবে কী পড়ানো হয়, কেন শিক্ষার্থীদের কোচিং সেন্টারে যেতে হয় এসব ব্যাপারে বিস্তারিত একটা গবেষণা চালাব। গবেষণাকর্ম তুলে ধরবো পত্র-পত্রিকায়। কাজটা আমি করবোই।
আমরা জানি, হেলাল ভাই যা বলে তা করে। সে অবশ্যই এরকম কিছু করবে।
আমরা ভেবে পাচ্ছিলাম না যে, দ্’ুবোন একই সাথে একই বাহকের কাছে চিঠি পাঠাল কেন? জগতে কত অকল্পনীয় ঘটনা ঘটে। শেষ পর্যন্ত কী ঘটতে যাচ্ছে কে জানে।
হেলাল ভাই রীতিমতো কাঁপছিল। নার্ভাস মাইন্ডের মানুষ। বলল: মোজাফ্ফর, এক গ্লাস বরফ শীতল পানি দাও।
মোজাফ্ফর এক গ্লাস ঠান্ডা পানি দিল। হেলাল ভাই এক চুপুকে গ্লাস নিঃশেষ করে বলল: আরেক গ্লাস দাও।
গাব্বু ধমক দিয়ে উঠল: এত ঠান্ডা পানি খাওয়ার কী হল?
: বুক শুকিয়ে সাহারা, গোবি, কালাহারি মরুভূমি হয়ে যাচ্ছে।
: মরুভূমি হবার মতো কী ঘটেছে? আমার তো মনে হচ্ছে, মনে বসন্ত বাতাস প্রবাহিত হবার মতো ঘটনা ঘটে গেছে।
: কী রকম?
: নিশ্চয় পথ খুলে গেছে। ছোট বোন বড় বোনকে স্যাকরিফাইজ করেছে। স্যাকরিফাইজ করে ছোট বোন সরে দাঁড়িয়েছে। তা না হলে দুই বোন এক সাথে চিঠি পাঠাতে পারে না।
আমাদেরও মনে হল, গাব্বু যা বলছে সেরকম কিছুই ঘটেছে। হেলাল ভাই বসে যাওয়া কন্ঠে আমাকে বলল: ঠিচি পড়তো দেখি…..।
: ঠিচি মানে?
: চিঠি পড়তো।
: কোনটা আগে পড়ব?
: রিনিরটা আগে পড়। আগে স্যাকরিফাইজটা দেখে মন শান্ত করি।
আমি চিঠি খুললাম। আমার বুকের মধ্যেও কেমন ঢিপঢিপ করছিল। হেলাল ভাইয়ের প্রেম নিয়েই এই অবস্থা, নিজে প্রেমে পড়লে কি যেন হবে। এই জন্যই গান গেয়েছে-লোকে বলে প্রেম আর আমি বলি জ্বালা/কন্টকও হার তারে, আমি বনোমালা।
আমি বললাম: মোজাফ্ফর ভাই, এক গ্লাস পানি দেন।
: ঠান্ডা পানি?
: না, গরম পানি। গলা পরিস্কার করতে হবে।
: সামান্য একটু প্রেমের ব্যাপারে আপনেগো এত গরম পানি-ঠান্ডা পানি শুরু হইছে। প্রেম তো আমরাও করছি, আমাগো ওরকম……।
মোজাফ্ফরও প্রেম করেছে। বিষয়টা আমাদের মধ্যে আগ্রহ জাগিয়ে তুললো। আমি বললাম: আপনি প্রেম করে বিয়ে করেছেন?
: তয় কী বলতেছি?
: কে আগে প্রস্তাব করেছিল?
: আমি।
: কীভাবে?
: মাজেদা, আই লাভ ইউ।
: ইংরেজিতে?
: এই সামান্য কথা আবার বাংলায় বলতে যাব?
: তারপর কী হল?
: রাজি হয়া গেল।
: একবারেই?
: তয় কয়বার বলতে হবে? আমি দেখতে-শুনতে কম নাকি? ছোট হোক, বড় হোক একটা ব্যবসা আছে। এরকম পোলা ওর মতো মাজেদারে আই লাভ ইউ কইছে এইটা ওর ভাগ্য।
বোঝা গেল, হেলাল ভাইয়ের চেয়ে মোজাফ্ফরের আত্মবিশ্বাস ভাল-বিশেষ করে প্রেমের ক্ষেত্রে।
মোজাফ্ফর আধা গ্লাস পানি নিয়ে তাতে কেটলি থেকে গরম পানি ঢালল। গরম পানি খেয়ে আমি তিনবার গলা কাশলাম। তারপর পড়তে লাগলাম-
প্রিয়তম হেলাল,……..
হেলাল ভাই চমকে উঠে বলল: কী সম্বোধন করেছে?
আমি বললাম: প্রিয়তম হেলাল।
: তা করবে কেন? স্যাকরিফাইজের চিঠিতে এরকম সম্বোধন হতে পারে না।
: আচ্ছা, পড়ে দেখি।
: পড়।
জানি, তুমি আজ ভীষণ দ্বিধা-দ্বন্দ ও সংকটের মধ্যে দিন কাটাচ্ছ। সংকটের কারণ আমরা দুই বোন। আমরা কেউ কাউকে তিল পরিমাণ ছাড় দিতে রাজি নই। বিনা যুদ্ধে না ছাড়িবো সূচাগ্র মেদিনী। হৃদয় ভালবাসার জন্য তৈরী বলে এই ভালবাসা কখনো হৃদয়ে বয়ে আনে সীমাহীন সুখ-আনন্দ, আবার দুঃখ-বিষাদও বয়ে আনে কখনো। আমরা একই বাবার ঔরষজাত, একই মায়ের পেটের দুই বোন তোমার প্রেমে সাড়া দিয়ে তোমাকে ভীষণ ঝামেলায় ফেলেছি। ঝামেলা ভাবলেই ঝামেলা। আমরা কিন্তু কোনো ঝামেলা মনে করছি না। আমরা কি কারো পাকা ধানে মই দিয়েছি বা দিচ্ছি? আমরা কি কারও ঘরে আগুন দিয়েছি বা দিচ্ছি? তাহলে ঝামেলা কিসের? ঝামেলা কেন? জানি, চিঠির এই পর্যন্ত পড়ে তুমি কিছু বুঝতে পারছো না। মাথা গুলিয়ে যাচ্ছে। আমি কী বলতে চাচ্ছি তা অনুমানও করতে পারছ না। তাহলে তোমাকে আর ঝামেলায় রাখতে চাই না। সহজ করে বলি, আমরা দুইবোন একসাথে বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সিদ্ধান্ত নিয়েছি, কাউকে বঞ্চিত না করার। একই বাবার রক্ত আমাদের শরীরে প্রবহমান। একই মায়ের স্তন পান করে আমরা বেড়ে উঠেছি। আমরা কেমন করে একজন আরেকজনকে বঞ্চিত করে সুখ এবং আনন্দ পেতে পারি? তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমরা দু’বোনই তোমাকে বিয়ে করব। জানি, এখানে এসে তুমি চমকে উঠবে ভীষণভাবে। মাথায় বজ্রপাত হবার মত অবস্থা হবে তোমার। তোমার হৃদস্পন্ধন বেড়ে যাবে। তবে আমি সেরকম হবার মতো কিছু বলিনি। প্রচলিত সমাজব্যবস্থা আমাদের পায়ে শেকল পরিয়ে দিয়েছে। কেউ না কেউ, কখনো না কখনো সে শেকল ভাঙে। কখনো কখনো ভাঙতে হয়। তা না হলে সামাজ বদলায় না। সমাজকে বদলাতে হয়। আমরা আমাদের হৃদয় ভাঙার চেয়ে শেকল ভাঙাটাকেই অধিক গুরুত্ব দিয়েছি। তোমাকে বিয়ে করে আমরা দুই বোন আলাদা দু’টি বাড়িতে থাকব। আলাদা সংসার করব। তুমি আমাদের দুই বোনকে তোমার যা দেবার তা সমানভাবে ভাগ করে দিবে। মনের সব দ্বিধা-দ্বন্দ্ব ঝেরে ফেলে ইতিবাচক সিদ্ধান্তটাই নেবে আশাকরি। পত্রপাঠ উত্তর দিবে।

চলবে

Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!