সাপ্তাহিক ধারাবাহিক উপন্যাসে অভিজিৎ চৌধুরী (অন্তিম পর্ব)

না মানুষের সংসদ

প্রতিরক্ষার দায়িত্ব পেলেন ভুলু কুকুর ও তার দলবলেরা । বিদেশ মন্ত্রী হলেন বুধু ঘোড়া । পেঁচা পেল তথ্য, সংস্কৃতি দপ্তর । এরকমই সব হল । যদিও মন্ত্রীসভা অস্থায়ী, প্রত্যেককেই নির্বাচনে জিতে নিজেকে প্রমাণ করতে হবে ভবিষ্যতে । তবে টিকটিকি যে একজন অসাধারণ প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন তার প্রমাণ তিনি রাখলেন । বিজিত হংস-মাতাকে তিনি রাষ্ট্রপতি পদে পেতে চাইলেন এবং অস্থায়ী রাজ্যসভা গঠন করে তার অনুমোদনও নিয়ে নিলেন ।
সবটাই অনুশীলনের মধ্যেই রইল । না-মানুষের সংসদ গঠন হতে হয়তো আরো কয়েক মাস লাগবে কিন্তু নন্দ-স্যার, ইন্দ্র, শ্রোত্রিয়, কান্তু ও পল্টনের সহযোগিতায় মেধাবান মানুষের সঙ্গে দীর্ঘদিনের বৈরিতার একটা সমাধান আর সেতুবন্ধনের কাজেরও শুরু হয়ে গেল ।
বাবার সঙ্গে মর্নিং-ওয়াকে বেরিয়েছে মন । তাকেও ডাকা হল মুক্তধারা মঞ্চে । কয়েকজন মানুষ এবং পলাশিপাড়ার গরিষ্ঠ না-মানুষের অস্থায়ী মন্ত্রীসভার গ্রুপ ফটো নিল বিয়েবাড়ি ফেরতা সাংবাদিক পার্থ দাস বৈরাগ্য । সবচেয়ে খুশি হল রাণি মৌমাছি আর শ্রমিক মৌমাছিরা । এতোদিনে তাদের স্বজনদের মৃত্যুর একটা যোগ্য জবাব তৈরি হতে চলেছে ।

সমাপ্ত

Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!