• Uncategorized
  • 0

কাব্যক্রমে আবদুল বাতেন

১| তরুণী, তোমাকে

গুণগুণিয়ে তরুণী গো, তুমি
ড্রেসিং টেবিলের আয়নায় দাঁড়িয়ে লাগাচ্ছ ব্রা’র হুক
জীবন জাহাজ ডুবি ডুবি, যখন আমার
মাতাল ঝড়ে এবং জলোচ্ছ্বাসে।
মিলাচ্ছ লিপস্টিক, একটার পর আরেকটা, বেরি কি ওরেঞ্জি কালারের
কসাই কুমির, হাঙ্গরের হামলায়
অস্তিত্ব বিপন্ন বেশ, যখন আমার।
চালাচ্ছ মুখে মেকআপের ব্রাশ, বাম গালে একবার, ডান গালে আরেকবার
কাতানের সাথে মেচিং করে
স্টিলেটো থেকে নেইল পলিশ
আইফোনের কেস, রিং কিংবা গুসির ভ্যানিটিব্যাগ গোছাচ্ছ, ঘণ্টার পর ঘণ্টা
রোজা পারফিউমে ডোবাচ্ছ দেহ
সন্ত্রাসী সন্ধ্যার যমটুপি ঢাকা আমার অংশুমালী যখন।

২| কবিতা জেগে থাকে

উত্তম পাড়ার মতো রূপসী যে রমণী, ভালোবেসেছিল একদিন
পলিমাটি উর্বর অন্তর ঢেলেছিল
আমার উত্তাল রাত্রির আঙিনায়
বেলানের টলটলে জলরাশি গেঁথে কাজল দেয়া নয়নে, নিরবে
আমার কবিতা জেগে থাকে, বেঁচে থাকে
তাঁকে ভেবে ভেবে।
আমার বোধের বাগান বেড়ে ওঠে, ক্রমশ
তাঁর নিঃশ্বাসে প্রশ্বাসে।
পাই, তাঁকে পুরোপুরি, আমার পরানে-প্রার্থনায়, অশেষ না-পাওয়ায়!

৩| স্পর্ধা

খেয়েছি কামড়
কীটের ও কাঁটার
তবু গোলাপ তুমি ফোটো
সয়েছি সর্বদা
অত্যাচার আগাছার
তবু সৌরভ তুমি ছোটো
মেনেছি মৌনতায়
খরার ক্ষিপ্ত খড়গ
তবু সবুজায়ন তুমি রটো
অবিরাম
ঢেলেছি অবাধে রক্ত, অশ্রু ও ঘাম
স্বপ্ন-সুন্দর
তোমার স্পর্ধায় আসমান করো ফুটো।
ফেসবুক দিয়ে আপনার মন্তব্য করুন
Spread the love

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপি করার অনুমতি নেই।