।। ত্রিতাপহারিণী ২০২০।। T3 শারদ সংখ্যায় আলিউজ্জামান

একটি ছলের কবিতা

নিজেকে নিজের কাছ থেকে আড়াল করার ছল
বলে দিয়ে যায়নি মিহিন শীতকাল।
যেনো সাঁকো নেই, বিধিনিষেধ নেই রাস্তার কাজ
চলেই চলেছে যেনো পশ্চিম বাংলার এই কবিতা
হরমোন চ্যাপ্টার ঢিমে আঁচে কচিহাতে সেঁকছে পাউরুটি।এদিকে জল নড়ে ,পাতা পড়ে ।
চায়ের দোকানের পাশে নিজস্ব কিছুই নেই !
শুধু অভিব্যক্তিগত ঢ্যামনাশোক আর সকালের
প্রথম বাস থেকে নেমে যাওয়া
হাতঘড়ি কি বলে যায় তার সামান্য দেরীটুকু নিয়ে ?
কি বলে যায় ভাঙা আইসক্রীমবাক্স?
নিজেকে খুলে রাখবার এই উপশম
যতদূর গেলো শুধু বরফ গলিয়ে গেলো!

বন্ধ্যাফুলকে

ভাঙা কাচের প্রতিবিম্বধারণকৃত ঝিমানো পাখি,
দেখো…
জীবানবিমার পায়চারি করা চূর্ণ চূর্ণ ইট।
সতেজ নাচ দেখিয়ে বালিকে কেমন বুকে করে রাখে নদী।
যেনো বাসস্থান একটু একটু করে মোমবাতির শাসন নিভিয়ে …
রাত্রি শেষের ভেজা চুল , যোনি বরাবর উঠানামা করা
হে অপরিমেয় প্রণতি !
গান্ধর্ব মতের বিপক্ষে দাহপত্রে লিখে রাখা এসব,
সকল কিছুর বিনিময়ে বন্ধ্যাফুলে ডুবিয়ে যায় পুরুষের স্থলজগত।
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!