• Uncategorized
  • 0

নারীর অধিকারের কবিতায় মানিক বৈরাগী

আপনি মাংসে হরি না বৈরী

শিক্ষা পিয়াসী

কুরুক্ষেত্রের বিস্তির্ণ রক্তাক্ত প্রান্তর থেকে ভেসে আসা পুষ্পিতা
অভিবাসী উদবাস্তু জনজটে চারদিকে  কঠোর ধর্মান্ধতার বেড়াজাল
অন্ধকারাচ্ছন্ন কুসংস্কার ভেদ করার লড়াইয়ে আলোর তরণী  যুবা
শিক্ষার আলোয় নিজেকে ভাংতে ভাংতে  ভাঙ্গাতে চাও সমাজ।

তুমি তোমাকে ভেঙ্গেছো নবরূপে গড়ার প্রত্যয়ে
আত্ম প্রত্যয়ী শিক্ষা পিয়াসী তরুণী
তুমি তোমার সমাজে বেগম রোকেয়া হও
তুমি হারবেনা, তোমাকে হারাতে পারবেনা
তুমি হেরে যেতে পারোনা,হারতে দিবোনা
আসছি তোমার কাছে
তুমি প্রস্তুত থাকো।

ইয়াবা সুন্দরী

তাদের হাতের মুঠোয় ধর্মকর্মের কর্তা
তাদের হাতের মুঠোয় রাজনীতি
তাদের হাতের মুঠোয় সংস্কৃতি
তাদের হাতের মুঠোয় আবাসন
তাদের হাতের মুঠোয় সর্বভূত ক্ষমতা
তাদের হাতের মুঠোয় সাংবাদিকতা
তাদের হাতের মুঠোয় প্রশাসনের নিরবতা।
তোমাকে তারা

সুন্দরি  শিক্ষার্থী তুমিই রক্ষিতা
রুপসি তরুণী তুমিই ইয়াবা বাহিতা
তুমি এতিম তুমি ক্ষেত তুমি গ্রামীনা
তোমার আছে শিক্ষা চাহিদা
তোমার আছে সাজুগুজুর বিলাসিতা
তোমার নেই আর্থিক যোগান উপাদান
ঘরে ভাই বোনের ভাতের হাহাকার
মায়ের অসুখ ভাই বোনের নিত্য পিড়া
দারিদ্রের কষাঘাতে দিশেহারা তুমি বড় কন্যা।

দারিদ্য গুছাতে,লেখাপড়া চাহিদা মেটাতে
ধূর্ত মানবিক হাত বাড়িয়েছে তারা তোমার প্রতি
প্রথম বুঝোনি তুমি,আর ওরাতো সমাজপতি
অর্থ দিছে,পড়তে দিছে, খাবার, আবাসনও দিছে
এত সুযোগ সুবিধায় তাদের কথা ফেলবে কি করে?
সংকট শকটে লোভে লাভে দ্রুত কামিয়াবে
আজ এ দুর্গতি কার জন্যে ইয়াবা সুন্দরি।
নেপত্যে বুট কোটেরা যদি বলে সুন্দরি?

সীতা থেকে এশা

আমার আর কান্না আসেনা এশার কান্নায়
আমার চোখ শুকিয়েছে এশার অশ্রু জলে
আমিও একা হয়ে গেছি এশার মতো
এমন নারকীয় যজ্ঞ ঘটেনি একাত্তরে
কথিত মেধাবিরা সম্মিলিত নির্যাতন
করেছে তাকে
এশা আমার বোন,
প্রগতি প্রতিক্রিয়া মুদ্রার এপিট ওপিট
ওরা মুখোশ মানুষ, মূলত পশুর অধিক
তাদের নাম বামপন্থী, তাদের নাম ডানপন্থী।

এশা বোন আমার
ওরা আমাদের মতো পোশাক আশাক  পড়ে
ঘুরে ফিরে চা খায়,পাশে বসে তাকিয়েও দেখে
ঠেকায় পড়লে প্রগতির কথা বলে সুবিধাও নেয় প্রচুর
ওরা ঠেকায় পড়লে আল্লাহ রাসুল কে বেচা বিক্রি করে
আত্মীয়ও পরিচয় দেয়
ওরা শিক্ষকের ছদ্মবেশে ,বিরোধ মীমাংসার নামে কাছে ঘেঁসে
তারপর দলে দলে ঝাঁপিয়ে পড়ে
ওরা একাত্তরে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল
ওরা ৭৫ এ ঝাঁপিয়ে পড়েছিল
ওরা ডাকসু নির্বাচনে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল
ওরা খালেদা নিজামীর সময়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল
ওরা শাপলা চত্তরে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল
ওরা ৫ জানুয়ারিতে ঝা্পিয়ে পড়েছিল
ওরা সাঈদিকে চাঁদে উঠিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল
ওরা মৃনাল হকের ভাস্কর্য সন্ত্রাসে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল
ওরা ইস্যু বানায় বছর বছর, ঝাঁপিয়ে পড়ে
তারপর মিশে যায় জনস্রোতে
তারপর আবার ইস্যু, ঝাঁপিয়ে পড়ে

আমরা যাদের বিশ্বাস করি
ওরা আত্মীয় স্বজন, ব্যবসায়িক পার্টনার বনে যায়
তারা রেহাইও  পেয়ে যায় অনায়সে
আমাদের ক্ষত, আমাদেরই বহন করতে হয়
বুবু  ছাড়া আমাদের কেউ নাই
বুবুরও আমরা ছাড়া কেউ নাই।
তোমার আর্থ চিৎকার  পৌঁছে গেছে বুবুর কানে,
জনে জনে,ঘুমায়নি বুবু, আমরাও ঘুমাইনি।

আমি ভুলতে পারিনা পিচাশ  রাত
দু:খি মানুষের কষ্টে কাঁদে বুবু, নিজেরও দু:খ সমুদ্র সম।এশা শুন,তোমাকে যারা নিপিড়ন করেছে,সেই নরক যন্ত্রনায় বুবুর কান্নাও থেমে গেছে,থেমে গেছে সমুদ্রের স্রোত বায়ু প্রবাহ।
এশা
তুমি জানো শয়তান,ঘাতকের প্রজনন জ্যামিতিক হারে বাড়ে,মীর জাফর,নাতুরাম গডসে,মোস্তাক,ফনিভুষন,তাহের ঠাকুর, মেজর জিয়া।

ক্রমাগত গানিতিক হারে হ্রাস পাচ্ছে প্রগতি মুখি মানবিক মানুষ। আমাদেরও ঐক্য হতে দেয় না,বিভেদ বাড়ায় ও বাড়ে। পুজিবাদ,মৌলবাদ, সাম্রাজ্যবাদ, বিশ্বায়ন এসবের নিয়ামক শক্তি।

ক্ষমা করো বোন এশা
ক্ষমা করো,ক্ষমা করো
১২এপ্রিল ০১৮
কক্সবাজার।

স্থায়ি ঘুম চাই

ঘুম আসছে না, ঠিকই এই সময়ে চোখ জুড়িয়ে আসে ঘুম।চোখে ভাসে এশার বস্ত্র হরণের ছবি,কানে ঠন ঠন করে বাঁজে” মা আমার কাপড়”
আমার  মগজের কোষে সেই কান্নার আর্থ চিৎকার,হামা গুড়ি দি মাটির বারান্দায়,এঘর থেকে ও ঘরে যাই,দাও দাও করে ঝলছে  উঠুনের গোয়াল ঘর,বোনের ছুটা ছুটি আতংকিত চোখ।
তারপর
বহু যুগ পর  স্পষ্ট দেখতে পাই আরজু মণির মাথা ফাটা নিথর দেহ আমি শিউরে উঠে আরাফাতের মৃত সাদা চোখের ছবি,এশা তোমার উপর তার ও অধিক দখল গেছে।অসভ্য সাংবাদিকদের ক্যামেরা তোমার বস্ত্রহরণের চিত্র ধারণ করছে।ছিঃ
বুলেই গিয়েছিলাম সেই সব দু:সহ দিনের কথা,বুবু তুমি তখোন ক্ষমতায় ছিলে না,যে কারণে এত ত্যাগ, রক্তগঙ্গা, প্রতিক্ষা
শুধু তোমাকে, তোমার রাজনীতি কে ক্ষমতায় প্রতিষ্ঠা করা।
এখন তুমি ক্ষমতায়, পরিপূর্ণ শাসনভার তোমার হাতে,ঠিক এই সময়ে
এশার কান্না আমাকে ঘুমাতে দেয় না,এমোন ভাবে  বেঁচে থাকার চেয়ে, মরণ টি আমার উপযুক্ত কি না?
বুবু
আমি ঘুমুতে পারছি না,আমার গ্রীবার প্রতিটি শিরা উপশিরা ফুলে ফেপে উঠছে,আমার হাত পা নিষ পিষ করছে,দেহ কাপছে থর থর করে,ঘাম ঝরছে বৃষ্ঠির ধারায়।আমি ঘুমুতে চাই,একটি স্থায়ি ঘুম চাই,ঘুমুতে চাই।
১৩এপ্রিল০১৮

ক্রমশ… 

Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!