কবিতায় সোনিয়া চ্যাটার্জী

বাঁকুড়া জেলাতেই জন্ম এবং বসবাস। বর্তমানে ইংরেজি বিষয়ে এম.এ. পাঠরতা। ছোটবেলা থেকেই কবিতা পড়তে ও শুনতে ভালোবাসি। লেখালেখির হাতেখড়ি প্রায় কলেজ জীবনের শেষ দিকে। শিল্পকলায় বিশেষ আগ্রহী। নিজজন্মস্থানে প্রিয় মানুষ শিল্পী সমরেন্দ্রনাথ মিশ্রের সান্নিধ্যে মূলত খড়কেন্দ্রীক শিল্প কর্মে কিছুটা পাঠগ্রহণ করেছি। তাছাড়া যে কোনো চারুকলাতেই বিশেষ আগ্রহী।

রূপকথা

১.

চারটে দেওয়াল ঘিরে স্বপ্ন গুছিয়ে রাখা মানুষগুলোর
একে অপরের চাওয়া পাওয়ার কাছে দাঁড়াতে দাঁড়াতেই
নুয়ে পড়ে একটা গোটা জীবন।
ঘুমপাড়ানি গানে সন্ধ্যা নেমে আসে উপত্যকা জুড়ে
তবুও তারা যেন কিসের টানে পালিয়ে যেতে পারে না।

২.

কতোকাল পেরিয়ে গেল
একা একা হেঁটে যায় আমৃত্যু বেলা…
কথা দিচ্ছি গুছিয়ে নেবো
আমাদের যাবতীয় সম্পর্কের ঘুনধরা আসবাব _
” একজীবনে সবকিছু গোছানো যায় না রে রিমি !
প্রয়োজন মাপতে মাপতেই
তীক্ষ্ম শিরদাড়া বেয়ে ফসকে যায় একরত্তি জীবন “…
তবুও কোনো এক শীতকাল ঘিরে
উষ্ণ কথাদের ভিড়ে আবার জন্মাবো আমারা
কথা দিলাম

৩.

পারদ চড়ছে একটানা…
অগুন্তি জ্বরের ঘোরে আগলে  রাখি মানুষজন্মের কয়েকথোকা উষ্ণ অভিমান।
এখন আর আমি রূপকথার গল্প শুনি না মা!
প্রতিটা ঘুমের ভিতর ঘুমপাড়ানি মাসি পিসিরা পথ হারিয়েছে।
শুধু প্রতিবার নখের ডগায় আবদার পুষে রাখার সময় ভুলে যায়
তোমার কাছে কোনোদিনই আর ঠিকঠাক বড়ো হয়ে উঠতে পারিনি…

অসুখ

ডুবসাঁতার দিতে দিতে
আলগা হয় স্রোত।
নিজের মধ্যে ডুব দিলে
চারপাশটা ক্রমশ শান্ত হয়ে আসে।
তুমি বলতে ধ্যানযোগে অসুখ ভুলে থাকা যায়
তাইতো এখন প্রতিটা অসুখের ভিতর ডুবে ডুবে
বারবার ধ্যানস্থ হই
ধ্যান ভেঙে গেলে দেখি ঘৃণাজন্মের
আলাদা কোনো অর্জিত পাপ থাকে না।

সহাবস্থান

১.

সবকিছু ফিরিয়ে দিতে পারি না বলেই
ঋণী হতে ভালো লাগে আজকাল।
আশ্রয় আর প্রশ্রয়ের মাঝে হাঁটতে শিখে গেলে
আর ভাবা হয়ে ওঠে না
অভিমান আসলে কতটা গভীর দেওয়াল!

২.

যতবার আঘাত শব্দটার নীচে দাঁড়িয়েছি
চিনতে শিখেছি
মৌনতা আসলে একটা আশ্রয়
যার থেকে ছায়া জন্মায়
জন্মায় নির্ভরতা…
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!