• Uncategorized
  • 0

কবিতায় বিজয়াদিত্য চক্রবর্তী

১)

না 

কোথায় ‘না’ লিখে তুমি চলে গেছ আঢ্য অস্বীকারে
তোমার শব্দাঙ্ক ঘিরে তাপমাত্রা বাড়ে
কবরে আমি পরবর্তী নেমে
খুঁজে আসবো সেই মুখ? বেধড়ক প্রেমে
কিন্তু লণ্ডভণ্ড আমার ঘরবাড়ি
কোথায় ‘না’ লিখেছ তাই খুঁজে খুঁজে এল ফেব্রুয়ারী
বাস্তব প্রবেশ করে কর্মোচ্ছল শবে
তুমি তাকে মোক্ষম পল্লবে
আড়াল না দিয়ে নলে বাজিয়েছ উদ্দাম গোঙানি
মানুষের স্বপ্নে তবু প্রস্তুত হয়েছে অর্থহানি?
‘না’ কোন্‌ অত্যুগ্র বৃন্তে দিল সমঞ্জস?
জীবনের মাংসপিত্তরস
আবেগে আগলে রাখি আজো আমি যতদূর পারি
বেধড়ক প্রেম আমার লণ্ডভণ্ড করছে ঘরবাড়ি

২)

চামড়া ছেড়ে বেড়িয়ে যেতে যেতে

প্রতিটি নিশ্বাসের সঙ্গে আরশোলার মতো বেড়িয়ে আসছে
আত্মকরুণা,
দেহের বর্গার্ধ জুড়ে কালির দাগ
রাত্রি ১১:৩৫ থেকে ৩:২০ অবধি বিস্তৃত
সরলরেখাকে
একটি অক্ষরে মাপবার চেষ্টা
তুমি ছিন্ন কানের মতন নরম অন্ধকার
প্রত্যেক নিশ্বাসের সাথে আমার হাতপা মুছে যাচ্ছে
ঘাম আর কানের ভেতরের ঝাপসার মতো
ভুষি জমছে আলতো আলতো   পিপাসাযন্ত্রে
লবণকেতন উপস্থিতির হ্যাঁ—না-
জিভের মতন বন্দি
গোলাপ ফুল কাকাতুয়া ফুল
গরম চায়ের তারল্য
আমি আমার চামড়া ছেড়ে বেড়িয়ে যাচ্ছি
মাথার বাদাম থেকে
তোতলানো কাদা হাত হয়ে নামছে, আমি
জামিন রেখে যাচ্ছি
আমার তোবড়ানো অন্ত্র চোখচাঁদ বৌ পুরুষ বন্ধু দোহার জেদ
সুদ গুণতে আসবো না তোমার কাছে
বিগত জন্মের বুক, পেট, দাঁত, যম
আগামী জন্মের দগ্ধ চাঁদ-আঁকা কুলো
পর্যাপ্ত শতাব্দীর ঠাণ্ডা টক হিক্কাধ্বনি
অধিকারবোধ আমার চিরদিন বাঁকা
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!