মেহেফিল -এ- শায়র প্রভাত মণ্ডল (গুচ্ছকবিতা)

১. পৃথিবী মাতা

অনেক দিনের পরে আবার বৃষ্টি এল আজ ,
তোমার সমস্ত শরীরটা
ভিজে একশা ।
এক দুরন্ত দুর্নিবার গতিতে তোমার মন ,
মুহূর্তে এলোমেলো হয়ে
হারিয়েছে ভাষা ।
বিবর্ণ কুৎসিত চেহারাটা ভুলবার প্রতীক্ষায় ,
আকুলি বিকুলি নেত্রে চেয়ে
মনে ভাষাহীন আশা ।
হে পৃথিবী তুমি অনন্ত শান্তির পথ পানে চেয়ে ,
একরাশ ভালোবাসা বুকে নিয়ে
তবু এক টুকরো নিরাশা ।
এ মনুষ্য জাতির বিবেক আজ চেতনাহীন ,
চিরদিনের সেই চেনা পথ খোঁজা
আজ বড় দুরাশা ।
আজ বৃষ্টি স্নাত শরীর নিয়ে নীরবে একাকী তুমি ,
শত লাঞ্ছনা গঞ্জনা সয়েও
পরিপুষ্ট করিছ এ ভূমি ।

২. পারিনা ছাই হতে

অজানা পথেই হেঁটে চলা জীবন বাণী
নিঃশব্দের মাঝেও শুধু পদব্রজের ধ্বনি ,
দিন গোনে , রাত গোনে , গোনে তারাদের মেলা ,
অন্তহীন নিস্তব্ধতায় জীবন যুদ্ধের খেলা ।
মৃত‍্যুও ডাকে প্রতি ক্ষণে , ডাকে চোরাবালি
তবুও উপেক্ষা বারবার , মৃত‍্যুকে পিছে ফেলে চলি ,
নতুন ভোরের এক টুকরো মিষ্টি আলোর প্রত‍্যাশায় ,
মৃত‍্যুর চোখে চোখ রেখে পায়ে পায়ে হেঁটে যেতে চায় ।
মানুষ আমাকে ডাকে , ডাকে মনুষ‍্যত্বের মিটিমিটি আলো
মনুষ‍্যত্বহীনতাও ডাকে রবির প্রখর জ‍্যোতিসম তেজ নিয়ে ,
বারে বারে পড়ে যায় পুড়ে যায় , তবু পারিনা ছাই হতে কভু
দগ্ধ যত হই বারেবার , শক্তি দাও যেন লড়তে পারি হে প্রভু ।

 

৩.সত‍্যের সন্ধানে

সত‍্যের সন্ধানে ফিরেছি দ্বারে দ্বারে
গহন নিশিতে পৃথিবীর গলিপথে ,
মরুময় প্রিন্তরে আর স্রোতের ঘূর্ণপাকে
তারাদের ভীড়ের মেলায় ,
আমি একা একা ।
দেখেছি পূর্ণিমার এক ফালি চাঁদ
ছুটেছে অমানিশার তীব্র অন্ধকারে ,
আমার সেই এক টুকরো অবলম্বিত
সত‍্যের ধেয়ে চলা মিথ‍্যার দিকপানে ,
আঁধারে যায় না কিছু দেখা ।
তবু মরীচিকা জল ভাবি গরলেরে সুধা
বাঁচাতে পারি যদি এ হিংস্র বসুধা ,
নবোদ‍্যম মনে নিয়ে মিথ‍্যার তিমির রাতে
জ্বালায়ে ছোট্ট প্রদীপ দেখি সত‍্যের পথরেখা ,
যদিও সে পথ শুধু বড় আঁকাবাঁকা ।

 

৪. আমি প্রাপ্তি

আমি প্রাপ্তি ,
তোমার দ্বারে এসে উপনীত ;
একটা কান্না ভেজা ভাঙা বুক নিয়ে
কিছুটা ইতস্তত ।
শত অভিযোগ তোমার আমাকে ঘিরে ,
জীবন ভরা না পাওয়ার হাহাকার ;
তোমার বুকটাকে চিরে নাকি
খান খান করে দিচ্ছে বারবার !
আজ দৃঢ় কণ্ঠে বলছি হে মানব !
প্রাপ্তি ভাগ্য তো সবার ঘটে না ,
তোমার চাওয়াটা অনেক বেশি
তাই না পাওয়ার বেদনাটা বিস্তর ।
জীবন সায়াহ্নে তুমি বারে বারে চাও পেতে ,
ফেলে আসা সেই চেনা কৈশোর ;
কর্মহীন জীবনে শুধুই চাওয়ার পাহাড় ,
তাই বেদনা হতে তোমা নেই কোনো নিস্তার ।

 

৫. অগুনতি শব

একটা স্বপ্নিল চাঁদ ফিরে ফিরে বার বার ওঠে ,
ওই দিগন্ত ব‍্যপী আকশটার বুকে
এক কোণে ।
একটাই স্বপ্ন প্রতি রাতে ঘুম ঘোরে দেখা দেয়
মস্ত জীবন সমুদ্রের কোনো এক
দিক পানে ।
জীবন্ত পৃথিবীটা আঁধোরাতে মৃত স্বপ্নের লাশগুলো ,
গুণে ফেরে বিনিদ্র রাত্রিযাপনে
চুপিচুপি ।
কোনো এক ছাঁই চাপা ঢিপির পাশেই দাঁড়িয়ে থাকে ,
দেখে বিবর্ণ সেই চেনা ইচ্ছেগুলো আজ কাঁদছে
সারারাতি ।
প্রভাতে স্বপন সবই নিমেষে নিঃশেষ প্রতিদিন ,
অগুনতি মানুষের কোলাহলে জনপদে ওঠে
বিচিত্র রব ।
হিংসা বিদ্বেষ আর হানাহানি কানাকানিতে পরিপূর্ণ ,
জনসমুদ্রের ঢেউ প্রতিদিনই গুনে চলে শিশুর
অগুনতি শব ।
Spread the love

You may also like...

error: Content is protected !!