উৎসব সংখ্যায় গুচ্ছকবিতা -দিশারী মুখোপাধ্যায় 

    0
    5
    Spread the love

    শামা 

    আলোটা বড় তীব্র ছিল
    চোখে পীড়াদায়ক
    তাছাড়া গোপনীয়তা রক্ষার পক্ষেও
    বেশ অসুবিধাজনক
    তাই ফিউজ কেটে দিয়েছি
    মৃত বাতিটাকে হোল্ডার থেকে
    খুলে ফেলিনি ,ফেলতে পারিনি
    রয়েছি কী-যায়-আসে ভানে
    কেউ যদি অন্ধকারে কোনোদিন
    সত্যিটা দেখে ফেলেন যে
    ঘাতক লাশের খোঁজ নেয়
    চুপিচুপি লাশের হয়ে কাঁদে
    লাশের হয়ে সে নিজেই পোড়ে
    তবে অনুগ্রহ দেখবেন না
    বলবেন না
    অন্ধ হলেও সে বাতি
    আমি শামাপোকা

    সুরধুনি

    রাত্রি খুব কাছে এসে খুলেছে বল্কল
    ঠান্ডা জলে চোখ ধুয়ে স্বপ্ন খোঁজে গানের অন্তরা
    কতদিন তুমি আর অস্বীকারে হত্যা করবে হৃদয়ের বুক
    একদিন জানালা নিজে ডেকে আনবে মুক্ত নিকেতন
    তখন হৃদয় থেকে ঝরে পড়বে
    হেমন্তের জিরেন চুম্বন
    শকলের নিচে চাপা রক্তাভ প্রণয়
    অস্বীকারে হবেনা বিলয়
    প্রেমিকের রক্তাক্ত মাথা আর তার আইসোটোপ দিয়ে
    নৃমুণ্ড বানিয়ে কত নিজেকে ঠকাবে
    সমস্ত বিবেকবুদ্ধি একদিন নতজানু হবে
    তখন রাত্রির গানে মন্দিরার ধ্বনি শোনা যাবে

    সিস্টোল ও ডায়াস্টোল 

    গত ১২ ভাদ্র ১৪২৩ রবিবার , ২৮ আগস্ট ২০১৬ কৃষ্ণদ্বাদশীর দিন আমি ছাপান্ন পর্যন্ত গণনা সম্পূর্ণ করে সাতান্নর ঘরে পা দিলাম
    ওইদিন মধ্যরাত্রে আমার অ্যাঞ্জিওপ্লাস্টি করার সময়
    আজ থেকে ছেচল্লিশ বছর আগের একটি জীবনবিজ্ঞানের বই খুঁজে পাই
    ওই বইটির ষোলো ,সতেরো ও আঠারো নম্বর পাতার ভাঁজে ভাঁজে যথাক্রমে নয়নতারা , দোপাটি ও গোলাপের শুকনো কিন্তু অবিকল পাতা পাওয়া যায়
    পরিবারিক মেডিক্লেমের বার্ষিক পনেরো লক্ষ টাকা দাবির বিনিময়ে ও চিকিৎসকদের অভ্রান্ত ভ্রান্তিতে আমি এখন আমার উকিল বন্ধুর কাছে উইল তৈরীর ট্রেনিংয়ে ব্যস্ত
    আপনাদের কারো যদি এই জাতীয় কোনো অসুখ ধরা পড়ে তবে বিন্দুমাত্র বিলম্ব ও সংকোচ না করে অতিসত্বর আমার সঙ্গে যোগাযোগ করুন
    সঙ্গে মেডিক্লেমের পলিসি ,না থাকলে বাড়ি ও ভিটের দলিল নিয়ে না আসার ভুল করবেন না অনুগ্রহ করে
    আগামী ১৪ আশ্বিন শুক্রবার ১৪২৩ , ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ অমাবস্যা তিথিটি অত্যন্ত শুভ বলে দৃকসিদ্ধ মতে বিবেচিত হয়েছে

    বিজ্ঞাপন 

    শিরীষপাতা কাকে বলে জানিয়েছিলাম
    কাকে বলে জাম পাতা
    তোমার উঠোনের হাজার পাওয়ারের বাতিটা
    যার ফিলামেন্ট কেটে গিয়েছিলো
    সেটা কি আবার তার বাকশক্তি ফিরে পেল
    আমার আজকাল কালির দোয়াতে কলম ডুবিয়ে লিখতে ইচ্ছে করে
    কিংবা আর্টেক্স-এর ফাউন্টেনপেন
    সুলেখা এখন বিলুপ্ত কথন
    তাহোক ,তবু আমার স্বপ্ন দেখতে ইচ্ছে করে
    এখন বাজারে সর্ট-ঝুলের জামার খুব চল
    জোড়াসাঁকোর ভদ্রলোক যে জোব্বাটা পড়তেন
    সেইটা কিনবার জন্য যে টাকার প্রয়োজন
    তা সংগ্রহ করতে
    এই লেখাটি আমার একটি কিডনি বিক্রির বিজ্ঞাপন
    শিরীষপাতার পাঠ শেষ হলে ফার্ণ

    Spread the love