কবিতায় দিশারী মুখোপাধ্যায় 

0
10
Spread the love

প্রাণায়াম  

ঠিক এই সময়ে তুমি বসে আছো
একটা অসমাপ্ত ছবির সামনে
ক্যানভাসের মাঝ বরাবর যে রাস্তাটা
পুবদিক থেকে এগিয়ে গেছে পশ্চিমে
সে রাস্তায় কার মুখ রাখা ঠিক হবে
ভাবছো আর তুলির সঙ্গে পরিচয় করাচ্ছো কোনো নতুন রঙের
ওই ক্যানভাসেরই এধারে ওধারে উড়ে বেড়াচ্ছিল
কয়েকটা প্রজাপতি
তারা মাঝে মধ্যে এসে বসছিল তোমার চুলে
সিঁথির মাঝখানে আর ঠোঁটে
শিহরণ উঠছিল তোমার পার্শোনাল ইমেলের ইনবক্সে
বাইরে অবশ্য ছিলে নির্বিকার
হঠাৎ নগর দায়রা আদালত থেকে
একটা সমন সেঁটে দিয়ে গেল তোমার দরজায়
আর তাই দেখে তোমার ক্যানভাস সক্রিয় হয়ে উঠলো
তোমার ইচ্ছা অনিচ্ছাকে বাদ দিয়েই
ক্যানভাসে ফুটে উঠলো পঁচিশ বছর আগে ছাপানো
তোমার হলুদ রঙের বিস্ময়

বাঁশি 

একজন মানুষ ঘেন্না ছুড়ছে
যার দিকে
তার ঝুলিতে গিয়ে পড়ছে
বিসমিল্লা খাঁ
একজন খুনি মৃত্যু ছুড়ছে
মৃতজনের শরীরে বেঁচে উঠছে
রাগ ভৈরবী
নদী কোনো ইতিহাসের বই নয়
পাখির ডানায় আসা নতুন পালক

বিদ্যা বিনয় দান করে 

ফেনা হ’য়ে উপচে পড়েছে একদিন
আজ কেবল একটা তারিখের ফসিল
আজ কেবল অবাক হ’তে হবে
বলতে হবে — অসাধারণ
আজ নিজেকে ভিজে ন্যাকড়া দিয়ে মুছতে হবে
আর কেনা ও রেডিমেড আলপনায় সাজাতে হবে
অস্তিত্বহীন নাগাল
যে কোনোদিন নারকেল গাছে উঠে
সংগ্রহ করেনি তৃষ্ণার পানীয়
সে হাতে ডাব পেলে একটা স্ট্র খুঁজবেই
সাদা পাঞ্জাবির খাতিরে
দেমাকে আমার পা পড়তে চাইছে না
আমার ভালোমানুষীর মুখোস
মানতে চাইছে না যে
নির্বিষ সাপের ফণা থাকে না
কেবল ডুবুরির চোখের ভুরু থেকে জানা গেলো
জল নেই ভূমধ্যসাগরে

Spread the love